বেসরকারি পর্যায়ে এলএনজি আমদানির নীতিমালা হচ্ছে  

    স্টাফ করেসপনডেন্ট, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
    প্রকাশিত: জানুয়ারি ২০, ২০১৯ রবিবার ১২:১৫ পিএম BdST     ক্যাটাগরি: গ্যাস

প্রাকৃতিক গ্যাসের চাহিদা পূরণে বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তাদের তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস বা এলএনজি আমদানির সুযোগ করে দিতে এলএনজি আমদানি নীতিমালা প্রণয়ন করতে যাচ্ছে সরকার।

ইতোমধ্যে বেসরকারি পর্যায়ে এলএনজি আমদানি নীতিমালার খসড়া তৈরি করা হয়েছে বলে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, দেশীয় প্রাকৃতিক গ্যাসের বিকল্প অন্যতম উৎস হিসেবে জ্বালানির সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করতে আমদানিকৃত এলএনজি তা পূরণে সহায়ক হবে। সব স্টেকহোল্ডারদের মতামত নিয়ে খসড়া নীতিমালাটি শিগগিরই চূড়ান্ত করা হবে।

ওই নীতিমালায় বলা হয়েছে, দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন, সার কারখানা, শিল্প প্রতিষ্ঠান, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান, সিএনজি এবং গৃহস্থালী খাতে প্রাকৃতিক গ্যাস পরিবেশ দূষণ রোধসহ কাঙ্ক্ষিত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে।

ভবিষ্যতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির কারণে প্রাকৃতিক গ্যাসের চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে পার্থক্য আরও বৃদ্ধি পাবে। এ পেক্ষাপটে, দেশীয় প্রাকৃতিক গ্যাসের বিকল্প অন্যতম উৎস হিসেবে আমদানিকৃত এলএনজিকে চিহ্নিত করা হয়েছে।

এলএনজি আমদানির জন্য বেসরকারি আমদানিকারকগণের এলএনজি আমদানি, মজুদ, রি-গ্যাসিফিকেশন ও সরবরাহের নিমিত্তে অবকাঠামো নির্মাণের অর্থায়নের ক্ষেত্রে সময়ে সময়ে আদেশ দ্বারা নির্ধারিত প্রমাণিত আর্থিক সামর্থ্য থাকতে হবে।

আমদানিকারকের বিদ্যুৎ, জ্বালানি অথবা ভারীশিল্প খাতে কোনো প্রকল্প নির্মাণ বা পরিচালনার বাস্তব অভিজ্ঞতা থাকতে হবে অথবা আমদানিকারক কোনো তৃতীয়পক্ষের সাথে কনসোর্টিয়াম গঠন করে থাকলে উক্ত তৃতীয় পক্ষের এলএনজি খাতে কোনো প্রকল্প নির্মাণ বা পরিচালনার বাস্তব অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

আমদানিকারকগণ এ নীতিমালার বিধানাবলী সাপেক্ষে রিগ্যাসিফাইড এলএনজি নিজস্ব বিদ্যুৎ কেন্দ্র, শিল্প ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে ব্যবহার এবং অন্যান্য বিদ্যুৎ কেন্দ্র, শিল্প ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে বাণিজ্যিকভিত্তিতে বিক্রয়ের জন্য এলএনজি আমদানি করতে পারবেন।

পেট্রোবাংলার পূর্বানুমতি নিয়ে বেসরকারি উদ্যোক্তাগণ পেট্রোবাংলার কোম্পানীসমূহের সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন ব্যবহার করে গ্যাস সরবরাহ করতে পারবেন। তবে এজন্য হুইলিং চার্জ পরিশোধ করতে হবে।

আমদানিকারকগণ তাদের নিজস্ব গ্রাহকের নিকট সরবরাহতব্য রিগ্যাসিফাইড এলএনজি’র মূল্য উভয়পক্ষ (ক্রেতা ও বিক্রেতা) আলোচনার মাধ্যমে নির্ধারণ করতে পারবেন এবং এ বিষয়ে বৃহৎ ক্রেতাগণের সাথে স্বাধীনভাবে চুক্তি করতে পারবেন।

আমদানিকারকগণ কর্তৃক নিজস্ব প্রতিষ্ঠানে ব্যবহার ও তাদের গ্রাহকদের প্রতিষ্ঠানে সরবরাহের পর রিগ্যাসিফাইড এলএনজি’র উদ্বৃতাংশ (যদি থাকে) পেট্রোবাংলার চাহিদা ও প্রয়োজন থাকলে পেট্রোবাংলার স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী একটি নির্দিষ্ট মেয়াদে পেট্রোবাংলার নিকট বিক্রয় করতে পারবে।

পেট্রোবাংলার স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী এলএনজি আমদানি এবং আন্তর্জাতিক মানদন্ড অনুযায়ী আনলোডিং, স্টোরেজ, রিগ্যাসিফিকেশন ও সরবরাহ না করলে অথবা পরিদর্শনের সময় ত্রুটি পাওয়া গেলে অথবা সরকার/পরিদর্শকগণের বিভিন্ন সময়ে প্রদত্ত সুপারিশ বাস্তবায়ন না করলে এলএনজি আমদানির অনুমতি বা অনাপত্তিপত্র সাময়িক বা স্থায়ীভাবে বাতিল করার অধিকার সংরক্ষণ করবে সরকার।

এ নীতিমালায় প্রযোজ্য সকল ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত কোডস, স্ট্যান্ডার্স, আইনসমূহ এবং বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট আইন ও অন্যান্য নিয়মনীতি অনুসরণ করতে হবে।

সম্পাদক: আমিনূর রহমান
@ সর্বস্বত্ব এনার্জিনিউজবিডি ডটকম ২০১৫-২০১৯