তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে যুক্ত হচ্ছে জিএসবি  

    স্টাফ করেসপনডেন্ট, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
    প্রকাশিত: জানুয়ারি ১০, ২০১৯ বৃহস্পতিবার ০৫:১৬ পিএম BdST     ক্যাটাগরি: গ্যাস

দেশের স্থলভাগে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান ও জরিপ কাজে জিওলজিক্যাল সার্ভে অব বাংলাদেশকে (জিএসবি) যুক্ত করার পরিকল্পনা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম।

বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের আয়োজনে ওই বিভাগে অনুষ্ঠিত ‘চ্যালেঞ্জস অ্যান্ড অপরচুনিটিস ইন হাইড্রোকার্বন এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে এ কথা বলেন তিনি।

সচিব বলেন, “তেল-গ্যাস অনুসন্ধান কার্যক্রম চললেও এ বিষয়ে নিবিড়ভাবে গবেষণার কাজ সেভাবে হচ্ছে না। স্থলভাগে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেড(বাপেক্স)কাজ করলেও জিএসবি এর সাথে সম্পৃক্ত নেই। জিএসবিকে আরো সক্রিয় করে তুলতে তেল-গ্যাস অনুসন্ধানের পাশাপাশি দ্বিমাত্রিক ও ত্রিমাত্রিক ভূ-কম্পন জরিপ কাজেও সম্পৃক্ত করা হবে।”

দেশের স্থলভাগ ছাড়া সাগরে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান আরো গতিশীল করা হবে বলে জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, “জ্বালানি খাতের কার্যক্রমে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকসহ বিশেষজ্ঞদের সম্পৃক্ত করা হবে। শিগগিরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূ-তত্ব বিভাগের সাথে বাপেক্স এবং পেট্রোবাংলা সমঝোতা স্মারক সই করবে। ওই সমঝোতার আলোকে যৌথ পরিকল্পনার মাধ্যমে প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়নে সহযোগিতা নেওয়া হবে।”

সেমিনারে মোট তিনটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। এর মধ্যে ‘ইজ বাংলাদেশ রানিং আউট অফ হাইড্রোকার্বন রিসোর্সেস’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূ-তত্ত্ব বিভাগের সুপারনিউমারারি অধ্যাপক বদরুল ইমাম। বাপেক্সের সাবেক কনসালটেন্ট এক্সপ্লোরেশন জিওলোজিস্ট এম মনোয়ার আহমেদ ‘প্রসেপেক্ট জেনারেশন অ্যান্ড ইভালুয়েশন প্রসেস’ শীর্ষক এবং বিজিএফসিএল এর সাবেক কনসালটেন্ট জিওলোজিস্ট আবিদ লোদি ও পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার পুলক খিসা যৌথভাবে ‘রোল অফ থ্রিডি রিজার্ভার মডেলিং ইন ফিল্ড ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

বদরুল ইমাম তার প্রবন্ধে বলেন, “১৯৬০ সালের দিকে যেভাবে গ্যাস আবিস্কারের সফলতা ছিলো তার ধারাবাহিকতায় পরবর্তীতে সেভাবে ততটা আগ্রহ নিয়ে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান করা হয়নি। এখনো পর্যন্ত অনেক স্ট্রাকচার রয়েছে যেখানে তেল-গ্যাস পাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে।”

কিন্তু সেসব জায়গায় খনন কাজ করা হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, “কানাডাতে ভার্টিক্যালি কূপ খনন না করে হরাইজেনটালি করা হয়। অথচ বাংলাদেশ শুধু ভার্টিক্যালি কূপ খনন করা হচ্ছে। যদি হরাইজেনটালি কূপ খনন করা হয় তবে সাকসেস রেট হয়তো আরো বাড়বে।”

সেমিনার পরিচালনা করেন ভূ-তত্ত্ব বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী মতিন উদ্দিন আহমেদ। সেমিনারে হাইড্রোকার্বন ইউনিটের মহাপরিচালক মো. হারুন-অর-রশীদ খান, বাপেক্স এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর মো. আব্দুল হান্নানসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, আন্তর্জাতিক তেল কোম্পানীর প্রতিনিধি ও শিক্ষার্থীরা অংশ গ্রহণ করেন।

সম্পাদক: আমিনূর রহমান
@ সর্বস্বত্ব এনার্জিনিউজবিডি ডটকম ২০১৫-২০১৯