গত ১০ বছরে এলপিজির ব্যবহার বেড়েছে ২১ গুণ  

    নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
    প্রকাশিত: ডিসেম্বর ১৪, ২০১৮ শুক্রবার ১১:৪৪ এএম BdST     ক্যাটাগরি: এলপিজি

বাসাবাড়িতে তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) ব্যবহার গত ১০ বছরে ২১ গুণেরও বেশি বেড়েছে বলে জানিয়েছেন জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব আবু হেনা মোঃ রহমাতুল মুনিম।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান তিনি।

সচিব বলেন, বর্তমানে প্রায় ১০ লাখ মেট্রিক টন এলপিজি ব্যবহার হচ্ছে। ২০০৯ সালে এলপিজির ব্যবহার ছিল মাত্র ৪৭ হাজার মেট্রিক টন।

পরিবেশবান্ধব এই গ্যাস সঠিক নিয়মে ব্যবহার করলে দুর্ঘটনা ঘটবে না জানিয়ে তিনি বলেন, এলপি গ্যাস ব্যবহারের পাশাপাশি এ নিয়ে দুর্ঘটনা বেড়ে গেছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে এসব দুর্ঘটনাকে সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। সিলিন্ডারে উচ্চচাপে এলপি গ্যাস ভর্তি করার কারণে বিস্ফোরণ হয় না। আর প্রকৃতপক্ষে সিলিন্ডারে উচ্চচাপে এলপিজি ভর্তিও করা হয় না।

এলপিজি ভর্তিজনিত কারণে কোনো সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হয় না। প্রকৃত কারণ হচ্ছে সিলিন্ডার ব্যবহারের সঠিক নিয়ম না জানা। অসতর্কতা এবং সঠিক পরিবেশে সিলিন্ডার ব্যবহার না করা।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে এলপি গ্যাসের চাহিদা ৩০ লাখ মেট্রিক টন। এজন্য ৬০টি কোম্পানিকে প্রাথমিক অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। কোম্পানিগুলো অপারেশনে আসলে এলপি গ্যাসের মাধ্যমে অন্যদিকে জ্বালানি চাহিদা মেটানো সম্ভব হবে। বর্তমানে ১৭টি কোম্পানি এলপি গ্যাস গ্রাহক পর্যায়ে সরবরাহ করছে।

সংবাদ সম্মেলনে এলপিজি দুর্ঘটনা নিয়ে একটি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন প্রধান বিস্ফোরক পরিদর্শক মো. সামসুল আলম।

তিনি বলেন, সারা দেশে যেখানেই দুর্ঘটনা ঘটে আমরা তদন্ত করে দেখি। কোথাও সিলিন্ডার বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে না। রান্নাঘরে গ্যাস জমে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। আবার ভাল্ব দিয়ে অতিরিক্ত গ্যাস বের হয়েও দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। আমাদের সবার আগে গ্রাহক সচেতনতার দিকে নজর দিতে হবে।

 

সম্পাদক: আমিনূর রহমান
@ সর্বস্বত্ব এনার্জিনিউজবিডি ডটকম ২০১৫-২০১৯