ভারতে পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়াতে ১৫০ বিলিয়ন ডলারের চুক্তি  

    নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
    প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২৬, ২০১৫ শনিবার ১১:৪১ পিএম BdST     ক্যাটাগরি: আঞ্চলিক

পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়াতে মার্কিন প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টিংহাউজ ইলেকট্রিক কোম্পানির সঙ্গে ভারত ১৫০ বিলিয়ন ডলার সমমূল্যের একটি চুক্তি করতে যাচ্ছে।

চুক্তি অনুযায়ী, আগামী বছরের প্রথমার্ধে ভারতের গুজরাটে ছয়টি পারমাণবিক চুল্লি নির্মাণ করা হবে।

ভারতের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা এ কথা জানান, মোট বিদ্যুতের ২৫ শতাংশ পারমাণবিক খাত থেকে উৎপাদনের পরিকল্পনা করছে ভারত। এ লক্ষ্যে দেশটি পারমাণবিক চুল্লির সংখ্যা ৬০টিতে উন্নীত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ভারতের পরিকল্পনাটি বাস্তবায়িত হলে দেশটি চীনের পর বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পারমাণবিক জ্বালানির বাজারে পরিণত হবে।

২০৩২ সালের মধ্যে ভারত পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা ৫ হাজার ৭৮০ মেগাওয়াট থেকে ৬৩ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করতে চায়।

জীবাশ্ম জ্বালানির ওপর নির্ভরতা কমানো, গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ হ্রাস ও জলবায়ু পরিবর্তনের মারাত্মক প্রভাব এড়াতে দেশটি এ মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।

ওয়েস্টিংহাউজ ইলেকট্রিক কোম্পানি তোশিবা করপোরেশনের একটি অঙ্গপ্রতিষ্ঠান। তোশিবার এক মুখপাত্র বলেছেন, ভারতের কার্যাদেশ পাওয়ার ব্যাপারে ওয়েস্টিংহাউজ বেশ আশাবাদী।

এদিকে ভারতের এক সরকারি কর্মকর্তা জানান, গুজরাটের মিঠি ভিরডিতে পারমাণবিক চুল্লি নির্মাণে এরই মধ্যে ওয়েস্টিংহাউজের সঙ্গে ভারতীয় অপারেটর এনপিসিআইএলের বেশ কয়েকবার আলোচনা হয়েছে।

এনপিসিআইএল অবশ্য এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। তবে সরকারি সূত্রে জানা গেছে, উভয় পক্ষ একসঙ্গে ছয়টি চুল্লি নির্মাণের লক্ষ্যে আলোচনা করেছে।

দুই পক্ষের সাম্প্রতিক আলোচনার খবরে বৃহস্পতিবার তোশিবা করপোরেশনের শেয়ারমূল্য এক লাফে ৩ দশমিক ৩ শতাংশ বেড়েছে।

এদিকে ভারতের সঙ্গে কোম্পানিটির চুক্তি হলে বেশ চাপে পড়ে যাবে জেনারেল ইলেকট্রিক কোম্পানি (জিই)।

ছয় বছর আগে জিই-হিটাচি নিউক্লিয়ার এনার্জিকে একটি চুল্লি নির্মাণে প্রস্তাব দিয়েছিল ভারত। তবে বিষয়টি নিয়ে জিই এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি।

পারমাণবিক বাণিজ্যের পথকে ঝামেলামুক্ত করতে ২০০৮ সালে ভারতের সঙ্গে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে যুক্তরাষ্ট্র। তবে বেশ কয়েকটি কারণে এত দিন দেশ দুটির মধ্যে পারমাণবিক বাণিজ্য কোণঠাসা হয়ে পড়েছিল।

অবশ্য ২০১০ সালে নতুন একটি আইন প্রণয়নের পর ভারতে পারমাণবিক খাতে মার্কিন বিনিয়োগের বেশ ভালো সুযোগ তৈরি হয়েছে।

পরিকল্পনা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে ইন্টারন্যাশনাল অ্যাটমিক এনার্জি এজেন্সির কনভেনশন অন সাপ্লিমেন্টারি কমপেনসেশন ফর নিউক্লিয়ার ড্যামেজের (সিএসসি) অনুমোদনকে সর্বশেষ বাধা হিসেবে দেখা হচ্ছে।

ভারতীয় কর্মকর্তারা আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই এ অনুমোদন পাওয়ার আশা করছেন। এদিকে ওয়েস্টিংহাউজ আশা করছে, ভারত একটি কাঠামো তৈরির মাধ্যমে সিএসসির অনুমোদনের পথ সুগম করবে।

ভারত এর আগেও পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা বৃদ্ধির পরিকল্পনা নিয়ে বিফল হয়েছে। এ খাতে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, হঠাৎ করে বিপুল পরিমাণ পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনাটি উচ্চাভিলাষী। বর্তমানে দেশটিতে মাত্র ৩ শতাংশ বিদ্যুৎ পারমাণবিক খাত থেকে আসে।

এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বর্তমানে রাশিয়া সফরে রয়েছেন। এ সফরে অন্ধ্র প্রদেশে আরো ছয়টি চুল্লি নির্মাণে রাশিয়াকে প্রস্তাব দেয়া হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

উভয় দেশের কর্মকর্তারা বলেছেন, এ ছয়টির বাইরেও তামিলনাড়ুতে রাশিয়ার পারমাণবিক চুল্লি নির্মাণের কথা রয়েছে।

সূত্র: রয়টার্স।

সম্পাদক: আমিনূর রহমান
@ সর্বস্বত্ব এনার্জিনিউজবিডি ডটকম ২০১৫-২০১৯