ঢাকা, সোমবার, আগস্ট ২০, ২০১৮, ভাদ্র ৫, ১৪২৫ ১০:৩৫ এএম
  
হোম এনার্জি বিডি এনার্জি ওয়ার্ল্ড গ্রীণ এনার্জি মতামত সাক্ষাৎকার পরিবেশ বিজনেস অন্যান্য আর্কাইভ
সর্বশেষ >
English Version
   
অন্যান্য দেশ
চীনে কয়লা খনি বিস্ফোরণে ৪ জন নিহত
চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পার্বত্য প্রদেশ গুইঝুতে একটি কয়লা খনির বিস্ফোরণে চার শ্রমিক নিহত হয়েছেন। নিখোঁজ রয়েছেন অন্তত নয় জন। সোমবার রাতে প্রদেশের পানঝু শহরের জিমুজিয়া কয়লা খনিতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। সংশ্লিষ্টদের বরাত দিয়ে সংবাদটি প্রকাশ করেছে রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিনহুয়া। বিস্ফোরণের কারণ সম্পর্কে তেমন কিছু জানা যায়নি। উদ্ধার কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। পানান কোল ইনভেসমেন্ট করপোরেশন নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানচালিত খনিটিতে থেকে বছরে প্রায় তিন লাখ টন কয়লা উৎপাদন হয়। প্রতিষ্ঠানটি দুর্ঘটনার বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। এর আগে, গত এপ্রিলে খনিটিতে নিরাপত্তা বিষয়টি নিয়ে পরিদর্শন হয়। এরপর কয়লা খনি কর্তৃপক্ষকে তাদের নিরাপত্তা বিষয়ে বেশকিছু সংশোধনীর জন্য বলা হয়। সূত্র: রয়টার্স
ক্ষুদ্র মডিউলার রি-অ্যাক্টর ক্ষেত্রে রুশ-জর্দান সহযোগিতা
জুন ০১, ২০১৮ শুক্রবার ০৫:১৫ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
রাশিয়া এবং জর্দান ক্ষুদ্র মডিউলার রি-অ্যাক্টর ক্ষেত্রে পারস্পরিক সহযোগিতার পরিধি আরো বিস্তৃত ও জোরদার করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। জর্দানে পরিবর্তিত এনার্জি মার্কেটের প্রেক্ষাপটে দেশটিতে রুশ ডিজাইনকৃত ক্ষুদ্র মডিউলার রি-অ্যাক্টর স্থাপনের সম্ভাব্যতা নিরুপনের লক্ষ্যে জর্দান পরমাণু শক্তি কমিশন ইতোমধ্যে রোসাটম ওভারসিজের সঙ্গে একটি চুক্তি স্ই করেছে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে। জর্দান পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান ড. খালেদ তৌকান এ প্রসঙ্গে বলেন, “রোসাটমের সঙ্গে আমরা বহু বছর ধরেই যৌথভাবে কাজ করে আসছি। আমরা এই পারস্পরিক সহযোগিতা বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিস্তৃত করতে যাচ্ছি। বর্তমানে আমাদের জন্য ক্ষুদ্র মডিউলার রি-অ্যাক্টর ভিত্তিক পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণ অধিকতর প্রয়োজনীয় ও প্রাসঙ্গিক। অতএব এটির ওপরই আমরা আমাদের লক্ষ্য কেন্দ্রীভূত করতে চাই।” ক্ষুদ্র মডিউলার রি-অ্যাক্টর এনার্জি ক্ষেত্রে রোসাটমের ব্যাপক অভিজ্ঞতা ও বিশেষজ্ঞ জ্ঞান বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত। ২০১৯ সালে বিশ্বের প্রথম ভাসমান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র একাডেমিক লামানোসভ উদ্বোধন করতে যাচ্ছে রোসাটম। এছাড়াও স্থলভাগে স্থাপনযোগ্য ক্ষুদ্র মডিউলার রি-অ্যাক্টর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র উন্নয়নেও কাজ করছে সংস্থাটি। রুশ ডিজাইনের ক্ষুদ্র মডিউলার রি-অ্যাক্টর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর অন্যতম সুবিধা হলো যে, এগুলোর সাহায্যে পানির লবনাক্ততা দূরীকরণ ও তাপ উৎপাদন করা সম্ভব। জর্দানের পারমাণবিক কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় জনশক্তি উন্নয়নে সহায়তা প্রদান করে আসছে রাশিয়া। বর্তমানে রাশিয়ার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে জর্দানের শতাধিক শিক্ষার্থী ব্যাচেলার, মাস্টার্সসহ বিভিন্ন পোস্ট গ্রাজুয়েট প্রোগ্রামে অধ্যয়ন করছে।
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
বিশ্বের প্রথম ভাসমান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র জ্বালানী লোডিংয়ের জন্য প্রস্তুত
মে ২৩, ২০১৮ বুধবার ১১:৫৯ এএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
রাশিয়ায় তৈরী বিশ্বের প্রথম ভাসমান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র-একাডেমিক লামানোসভ-এ জ্বালানী লোডিংয়ের জন্য সেন্ট পিটার্সবার্গ থেকে গত ১৯ মে মুরমানস্কে আনা হয়েছে। জ্বালানী লোড করার পর বিদ্যুৎ গ্রীডে সংযুক্ত করার জন্য ভাসমান এই বিদ্যুৎকেন্দ্রটি রাশিয়ার দূরপ্রাচ্যের চুকুতকা অঞ্চলের পিভেক শহরে নিয়ে যাওয়া হবে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে। ভাসমান বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে প্রতিটি ৩৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন দুটি কেএলটি-৪০সি পারমাণবিক চুল্লি রয়েছে। ভাসমান কেন্দ্রটি লম্বায় ১৪৪ মিটার এবং প্রস্থে ৩০ মিটার। পিভেক অঞ্চলে বর্তমানে ৫০ হাজার লোককে বিদ্যুৎ সরবরাহকারী একটি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র এবং পুরনো পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের স্থলাভিষিক্ত হবে এই ভাসমান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। এর ফলে আর্কটিক অঞ্চলে হাজার হাজার টন কার্বন-ডাই-অক্সাইড নির্গমন রোধ করা সম্ভব হবে। মুরমানস্কে আগমন উপলক্ষ্যে এটমফ্লোটের (রুশ পারমাণবিক শক্তি কর্পোরেশন-রোসাটমের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান) জেটিতে এক জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রোসাটমের মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচোভ, চুকুতকা অঞ্চলের গভর্নর রোমান কপিনসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন। আলেক্সি লিখাচোভ ভাসমান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটিকে রুশ বিজ্ঞানীদের একটি অনন্য প্রকৌশল অর্জন হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন যে, ‘এটি মাঝারি ক্ষমতাসম্পন্ন মোবাইল বিদ্যুৎ ইউনিটের একটি রেফারেন্স, যার চাহিদা আগামী বছরগুলোতে বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে। উদাহরণস্বরূপ, বিভিন্ন দ্বীপ যেখানে নানাবিধ কারণে কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎ সরবরাহ অবকাঠামো নির্মাণ করা কঠিন, সেই সকল স্থানে এই জাতীয় বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের প্রতি আগ্রহ রয়েছে।’ বিভিন্ন পরিবেশবাদী এবং গ্রীণ গ্রুপ এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে। কেননা এর ফলে কয়লার ওপর আর্কটিক অঞ্চলের নির্ভরতা কমবে এবং বিপুল পরিমাণ কার্বন-ডাই-অক্সাইড ও বিষাক্ত বস্তু নিঃসরণজনিত পরিবেশ দূষণ থেকে রক্ষা পাবে ওই অঞ্চলের অত্যন্ত ভঙ্গুর ইকোসিস্টেম। ব্রাইট নিউ ওয়ার্ল্ড অর্গানাইজেশনের নির্বাহী পরিচালক বেন হার্ড তার মন্তব্যে বলেন, ‘সারা বিশ্বে দুরবর্তী জনগোষ্ঠীর জন্য প্রয়োজন সাশ্রয়ী মূল্যে নির্ভরযোগ্য নন-কার্বন এনার্জি। ভাসমান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র এই চাহিদা পূরণ করতে পারবে।’ একাডেমিক লামানোসভ ২০১৯ সালে বিদ্যুৎ গ্রীডে যুক্ত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এটির আয়ুষ্কাল ৪০ বছর, তবে ৫০ বছর পর্যন্ত বৃদ্ধিযোগ্য। এই জাতীয় মাঝারি আকারের বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো জ্বালানী লোড করার পর এক নাগাড়ে ৩-৫ বছর কাজ করতে সক্ষম। বিদ্যুৎকেন্দ্রটি ডি-কমিশনিং এবং রিসাইকেল করার জন্য রাশিয়ার মূল ভূ-খন্ডে নিয়ে আসা হবে। বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে প্রাপ্ত তেজস্ক্রিয় বর্জ্য ও স্পেন্ট ফুয়েল রাশিয়ার মূল ভূ-খন্ডে অবস্থিত বিশেষ সংরক্ষণাগারে রাখা হবে। রোসাটম ইতোমধ্যে দ্বিতীয় প্রজন্মের ভাসমান বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে কাজ করছে। এই বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোতে দুটি আরআইটিএম-২০০এম রি-অ্যাক্টর থাকবে এবং প্রতিটি উৎপাদন ক্ষমতা হবে ৫০ মেগাওয়াট। এগুলোর আকৃতিও অপেক্ষাকৃত ছোট।  
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
‘দশম আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি ফোরাম এটমেক্সপো সমাপ্ত’
মে ২০, ২০১৮ রবিবার ০৪:৩৮ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
রুশ রাষ্ট্রীয় পরমাণু শক্তি করপোরেশন রোসাটম আয়োজিত দশম আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি ফোরাম এটমেক্সপো ২০১৮ গত ১৬ মে রাশিয়ার সোচিতে সমাপ্ত হয়েছে। তিন দিনব্যাপি ফোরামে বাংলাদেশসহ রেকর্ড সংখ্যক ৬৮টি দেশ থেকে চার হাজারের অধিক প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ছয় শতের অধিক কোম্পানীর প্রতিনিধিত্ব ছিল এই ফোরামে। ১৩৬টি কোম্পানী ফোরামকালে তাদের পণ্য ও সেবা প্রদর্শন করেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন অংশগ্রহণকারীদের উদ্দ্যেশে এক বাণীতে বলেন, ‘বিগত বছরগুলোতে এই ফোরামটি বিশ্বের বৃহৎ কোম্পানী, সরকারী সংস্থা, বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ, রাশিয়াসহ বিভিন্ন দেশের শীর্ষস্থানীয় বিশেষজ্ঞদের একত্রিত করতে সক্ষম হয়েছে। আজকে এটি এমন একটি প্ল্যাটফর্ম হয়ে উঠেছে যেখানে উচ্চ পেশাদার পর্যায়ে পরমাণু সেক্টরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচিত হচ্ছে।’ ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে বৈশ্বিক অর্থনীতির উন্নয়ন এবং প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা নির্ভর করছে স্থিতিশীল ও পরিবেশ বান্ধব এনার্জির প্রাপ্তির ওপর। রাশিয়া পরমাণু শক্তির উন্নয়ন, পারমাণবিক শক্তি কেন্দ্রের নির্মাণ ও পরিচালনা, মৌলিক ও ফলিত গবেষণায় নেতৃস্থানীয় ভূমিকা পালন করে আসছে। ব্যাপক আন্তর্জাতিক সহযোগিতাসহ অন্যান্য পদক্ষেপের মাধ্যমে এই সামর্থ্যকে আরো বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।’ আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি সংস্থা (আইএইএ) এর মহাপরিচালক ইউকিয়ো আমানো, ওয়ার্ল্ড নিউক্লিয়ার অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট আগনেতা রাইজিং, ওয়ার্ল্ড অ্যাসোসিয়েশন অব নিউক্লিয়ার অপারেটরস্ এর প্রেসিডেন্ট জ্যাকিস রেগাল্ডোসহ অন্যান্যরা অংশগ্রহণ করেন। তারা বর্তমানে পরমাণু শক্তির ক্ষেত্রে গুরুত্ব বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা এবং ভবিষ্যতে পরমাণু শক্তির জন্য যৌথ কার্যক্রমের রূপরেখা নির্ধারণ করেন। ফোরামে বিভিন্ন বিষয়ের ওপর কয়েকটি সেশন এবং ১৬টি গোলটেবিল আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। এবার এটমেক্সপো চলাকালীন বাণিজ্যিকসহ মোট ৩৯টি চুক্তি সই হয়। পরমাণু শিল্পের উন্নয়নে তাৎপর্যপূর্ণ অবদান এবং মানব কল্যাণে পরমাণু শক্তি ব্যবহারের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের স্বীকৃতিস্বরূপ এবারই প্রথম কয়েকটি প্রতিষ্ঠানকে ‘এটমেক্সপো অ্যাওয়ার্ডস’ প্রদান করা হয়।   
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
সাড়ে তিন বছর পর জ্বালানি তেলের দাম সর্বোচ্চ
মে ১৬, ২০১৮ বুধবার ০৬:১২ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
সরবরাহ কমার পাশাপাশি বিশ্বের অন্যতম তেল রপ্তানিকারক দেশ ইরানে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার আশঙ্কায় বিশ্ববাজারে আবারও বাড়তে শুরু করেছে জ্বালানি তেলের দাম। এ কারণে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে সাড়ে তিন বছরে সর্বোচ্চ হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের আশঙ্কা ইরানের ওপর আমেরিকান নিষেধাজ্ঞায় তেল রপ্তানি কমে যাবে। মঙ্গলবার বিশ্ববাজারে ব্রেন্ট অশোধিত তেলের দাম ৩৭ সেন্ট বেড়ে হয়েছে ব্যারেলপ্রতি ৭৮.৬০ ডলার, যা ২০১৪ সালের নভেম্বরের পর থেকে সর্বোচ্চ দর। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের হালকা অশোধিত তেলের দর পাঁচ সেন্ট বেড়ে ব্যারেলপ্রতি হয়েছে ৭১.০১ ডলার, যা ২০১৪ সালের নভেম্বরের পর সর্বোচ্চ দাম। বিশ্ববাজারে তেলের চাহিদা বাড়লেও উৎপাদন সেভাবে বাড়ানো হয়নি। এতে গত এক বছরে তেলের দাম বেড়েছে ৭০ শতাংশ। বিশ্ববাজারে তেলের দাম বাড়াতে সৌদি আরবসহ রপ্তানিকারক দেশগুলোর সংগঠন ওপেক এবং রাশিয়া তেল উৎপাদন কমানোর চুক্তি করে। সেই চুক্তির আলোকে সরবরাহ কমায় এখন দাম বাড়ছে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানের সঙ্গে করা পরমাণু চুক্তি থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নিয়েছেন এবং ইরানের ওপর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছেন। এতে বাজারে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে ইরানের তেল সরবরাহ বন্ধ হলে বিশ্ববাজারে ঘাটতি দেখা দেবে। সূত্র: এএফপি।
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
‘রাশিয়ায় অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের উত্তোলন বেড়েছে’
এপ্রিল ০৪, ২০১৮ বুধবার ০৪:৪৩ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
রাশিয়ায় অপরিশোধিত জ্বালানি তেলে উত্তোলন মার্চ মাসে আগের তুলনায় বেড়ে সর্বোচ্চে পৌঁছেছে। রাশিয়ার জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ মাসভিত্তিক প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালের প্রথম দুই মাসে (জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি) দেশটিতে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের উত্তোলন স্থিতিশীল ছিল। তবে মার্চে জ্বালানি পণ্যটির উত্তোলনে তেজিভাব দেখা গেছে। এ সময় দেশটিতে মোট ৪ কোটি ৬৩ লাখ ৯০ হাজার টন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন হয়েছে। দৈনিক হিসাবে এর পরিমাণ দাঁড়ায় ১ কোটি ৯ লাখ ৭০ হাজার ব্যারেলে। ২০১৭ সালের এপ্রিলের পর এটাই রাশিয়ায় জ্বালানি পণ্যটির সর্বোচ্চ মাসভিত্তিক উত্তোলন। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়ার তেলকূপগুলো থেকে মোট ৪ কোটি ১৮ লাখ ৫০ হাজার টন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন হয়েছিল। দৈনিক হিসাবে এর পরিমাণ দাঁড়ায় ১ কোটি ৯ লাখ ৫০ হাজার ব্যারেলে। সেই হিসাবে এক মাসের ব্যবধানে রাশিয়ায় জ্বালানি পণ্যটির গড় উত্তোলন বেড়েছে দৈনিক ২০ হাজার ব্যারেল। আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের কাঙ্ক্ষিত মূল্যবৃদ্ধির লক্ষ্য পূরণের অংশ হিসেবে পণ্যটির উত্তোলন সীমিত রেখেছিল রাশিয়া। এর মধ্য দিয়ে অর্গানাইজেশন অব দ্য পেট্রোলিয়াম এক্সপোর্টিং কান্ট্রিজের (ওপেক) আওতায় অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বৈশ্বিক উত্তোলন হ্রাসসংক্রান্ত চুক্তি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। রাশিয়া অপরিশোধিত জ্বালানি তেল রফতানিকারকদের জোট ওপেকের সদস্য নয়। এর পরও আন্তর্জাতিক বাজারে ভারসাম্য ফেরানোর স্বার্থে ওপেকের আওতায় জ্বালানি পণ্যটির বৈশ্বিক উত্তোলন হ্রাসের চুক্তি মেনে চলছে। চুক্তির শর্ত অনুযায়ী, ২০১৬ সালের অক্টোবরের তুলনায় অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দৈনিক গড় উত্তোলন তিন লাখ ব্যারেল কমিয়ে আনার কথা রাশিয়ার। গত মার্চে এ শর্ত পূরণে ব্যর্থ হয়েছে দেশটি। এ সময় দেশটির জন্য নির্ধারিত কোটার অতিরিক্ত অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন করেছে রাশিয়া। সূত্র: রয়টার্স
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
যুক্তরাষ্ট্রে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন বেড়েছে দৈনিক ৬ লাখ ব্যারেল
এপ্রিল ০১, ২০১৮ রবিবার ১০:৪৩ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
যুক্তরাষ্ট্রে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন দৈনিক গড়ে ছয় লাখ ব্যারেল বেড়েছে। এ খাতে ২০১৭ সালজুড়ে প্রবৃদ্ধি ছিলো যা চলতি বছরের শুরুতেও অব্যাহত আছে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে দেশটিতে জ্বালানি পণ্যটির দৈনিক গড় উত্তোলন আগের মাসের তুলনায় ছয় লাখ ব্যারেল বেড়েছে। সম্প্রতি প্রকাশিত যুক্তরাষ্ট্রের এনার্জি ইনফরমেশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (ইআইএ) প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এর আগে ১৯৭০ সালে দেশটিতে জ্বালানি তেলের দৈনিক গড় উত্তোলন রেকর্ড ছুঁয়েছিল। এ সময় যুক্তরাষ্ট্রের সক্রিয় কূপগুলো থেকে প্রতিদিন গড়ে ৯৬ লাখ ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন হয়েছিল। সে হিসাবে, পাথুরে ভূমি থেকে উত্তোলন করা শেল খাতের ওপর ভর করে ২০১৭ সালে দেশটিতে জ্বালানি পণ্যটির উত্তোলন ১৯৭০ সালের রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে বলে জানিয়েছে ইআইএ। সম্প্রতি প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দৈনিক গড় উত্তোলনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯৯ লাখ ৬৪ হাজার ব্যারেলে। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে দেশটিতে প্রতিদিন গড়ে ৯৯ লাখ ৫৮ হাজার ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন হয়েছিল। সে হিসাবে, এক মাসের ব্যবধানে যুক্তরাষ্ট্রের সক্রিয় কূপগুলো থেকে জ্বালানি পণ্যটির দৈনিক গড় উত্তোলন বেড়েছে ছয় লাখ ব্যারেল। গত বছরের নভেম্বরে দেশটিতে প্রতিদিন গড়ে ৯৩ লাখ ১৮ হাজার ব্যারেল জ্বালানি তেল উত্তোলন হয়েছিল। অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলনকারী দেশগুলোর তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান বিশ্বে তৃতীয়। গত জানুয়ারিতে প্রকাশিত ইআইএর শর্ট-টার্ম এনার্জি আউটলুকের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালে দেশটিতে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলনের দৈনিক গড় পরিমাণ ১ কোটি ব্যারেলের সামান্য নিচে ছিল। চলতি বছর এর পরিমাণ বেড়ে ১ কোটি ২ লাখ ২৭ হাজার ব্যারেলে দাঁড়াতে পারে। প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতায় ২০১৯ সালে যুক্তরাষ্ট্রে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের গড় উত্তোলন ১ কোটি ৮ লাখ ৫০ হাজার ব্যারেল ছাড়িয়ে যেতে পারে। সূত্র:  রয়টার্স।  
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম আরো কমেছে
আগস্ট ১৬, ২০১৭ বুধবার ১১:৪৮ এএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দরপতন অব্যাহত রয়েছে। চীনে পণ্যটির চাহিদা বাড়ার পাশাপাশি পরিশোধনের পরিমাণ বৃদ্ধির খবরে গত দুইদিন ধরে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম আগের তুলনায় আরো কমেছে। একই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে পাথুরে ভূমি থেকে আহরিত জ্বালানি তেল (শেল) উত্তোলনের পরিমাণ বৃদ্ধির সম্ভাবনার খবর পণ্যটির দাম কমাতে ভূমিকা রেখেছে। ভবিষ্যতে সরবরাহের চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রে ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট (ডবিস্নউটিআই) বিক্রি হয় প্রতি ব্যারেল ৪৮ ডলার ৭৮ সেন্টে, যা আগের  তুলনায় ৪ সেন্ট বা দশমিক ১ শতাংশ কম। এদিন ভবিষ্যতে সরবরাহের চুক্তিতে প্রতি ব্যারেল ব্রেন্ট ক্রুড বিক্রি হয় ৫২ ডলারে, যা আগের  তুলনায় ১০ সেন্ট বা দশমিক ২ শতাংশ কম। নিউইয়র্ক মার্কেন্টাইল এক্সচেঞ্জে (নিমেক্স) জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহটি ছিল অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে বছরের সেরা সপ্তাহ। চীনের ন্যাশনাল ব্যুরো অব স্ট্যাটিসটিকসের সামপ্রতিক এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, চলতি বছরের জুলাইয়ে দেশটির পরিশোধন কেন্দ্রগুলোয় অপরিশোধিত জ্বালানি তেল পরিশোধনের পরিমাণ বেড়েছে। এ সময় এ সব কেন্দ্রে মোট ৪ কোটি ৫৫ লাখ টন জ্বালানি তেল পরিশোধন হয়েছে, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় দশমিক ৪ শতাংশ বেশি। গত জুলাইয়ে চীনে জ্বালানি তেল পরিশোধনের দৈনিক গড় পরিমাণ ১ কোটি ৭১ হাজার ব্যারেল। তবে রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী, চীনে গত জুলাইয়ে জ্বালানি তেল পরিশোধনের দৈনিক গড় হার ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরের পর সর্বনিম্ন। পরিশোধনের পরিমাণ বাড়ার খবরের পাশাপাশি চীনে চলতি বছর জ্বালানি তেলের চাহিদা বৃদ্ধির পূর্বাভাস দিয়েছে ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সি (আইইএ)। সংস্থাটির সাম্প্রতিক প্রতিবেদনের পূর্বাভাস অনুযায়ী, চীনে ২০১৭ সালে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল ব্যবহারের দৈনিক গড় পরিমাণ দাঁড়াতে পারে ১৫ লাখ টনে। এর আগে দেশটিতে পণ্যটির দৈনিক গড় ব্যবহারের পরিমাণ ১৪ লাখ টন হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছিল আইইএ। সেই হিসাবে দেশটিতে চলতি বছর অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দৈনিক গড় ব্যবহার ১ লাখ টন বাড়তে পারে বলে নতুন পূর্বাভাসে উল্লেখ করা হয়েছে। অন্যদিকে চীনের পেট্রোলিয়াম পরিশোধন প্রতিষ্ঠান সিনোপিক গ্রুপের ভাইস-প্রেসিডেন্ট জিয়াং হাইচাও জানান, চীনে বর্তমানে জ্বালানি তেলের চাহিদা দৈনিক প্রায় চার লাখ ব্যারেল। চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন) চীন ২১ কোটি ২০ লাখ ব্যারেল জ্বালানি তেল আমদানি করেছে, যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ১৪ শতাংশ বেশি। পণ্যটি আমদানির এ হার বজায় থাকলে অচিরেই চীন প্রথমবারের মতো অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানিকারক দেশগুলোর তালিকায় শীর্ষে চলে যাবে। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রে শেল উত্তোলনে চাঙ্গাভাবের খবর মিলেছে। মার্কিন এনার্জি ইনফরমেশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (ইআইএ) পূর্বাভাস অনুযায়ী, চলতি বছরের ডিসেম্বর নাগাদ দেশটির খনিগুলো থেকে শেল উত্তোলনের সম্মিলিত পরিমাণ বাড়তে পারে দৈনিক তিন লাখ ব্যারেল। টেক্সাসের পশ্চিমাঞ্চল ও নিউ মেক্সিকোর খনিগুলো থেকে পণ্যটির উত্তোলন সবচেয়ে বেশি হবে। মেলবোর্নভিত্তিক অস্ট্রেলিয়া অ্যান্ড নিউজিল্যান্ড ব্যাংকের এক নোটে বলা হয়, একই সময়ে চীনে জ্বালানি তেলের পরিশোধন বৃদ্ধি ও যুক্তরাষ্ট্রে শেল উত্তোলনে চাঙ্গাভাবের সম্ভাবনার খবরের জের ধরে গতকাল আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম আগের  তুলনায় কমেছে। সূত্র: রয়টার্স ও অন্যান্য সংবাদ সংস্থা
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
২০৪০ সাল থেকে যুক্তরাজ্যে পেট্রল ও ডিজেলচালিত গাড়ি বিক্রি হবে না
জুলাই ২৮, ২০১৭ শুক্রবার ১০:৫১ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
বায়ুদূষণ নিয়ন্ত্রণে ২০৪০ সাল থেকে পেট্রল ও ডিজেলচালিত গাড়ি নিষিদ্ধ করতে যাচ্ছে যুক্তরাজ্যে। ওই সময় থেকে নতুন করে আর কোনো পেট্রল ও ডিজেলচালিত গাড়ি বিক্রি হবে না। দেশটির পরিবেশ-বিষয়ক মন্ত্রী সম্প্রতি এক ঘোষণায় এ কথা জানান।খুব শিগগিরই এ সংক্রান্ত একটি ঘোষণা দেবে ব্রিটেনের সরকার। এই ঘোষণার সাথে সাথে বায়ু দূষণ কমাতে তিন বিলিয়ন পাউন্ডের একটি তহবিল ঘোষণা করবেন মন্ত্রীরা যেখানে ডিজেল চালিত গাড়ির দূষণ ঠেকানোর জন্য ২২৫ মিলিয়ন পাউন্ড বরাদ্দ থাকবে। এছাড়া পরবর্তীতে বায়ু দূষণ ঠেকাতে কী কৌশল গ্রহণ করবে সেই পরিকল্পনার বিস্তারিতও ঘোষণা দেবে ব্রিটিশ সরকার। ওই ঘোষণায় বিশুদ্ধ বায়ু সংক্রান্ত কৌশল ও বৈদ্যুতিক গাড়ির বিষয়ে যে সরকারের উৎসাহ রয়েছে সেটিও উঠে আসবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এর আগে ব্রিটেনের আদালত দেশটিতে দূষণকারী গাড়ির বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে এবং বায়ুদূষণ ঠেকাতে কী পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে তা জানাতে সরকারকে ৩১ জুলাই পর্যন্ত সময়সীমা বেঁধে দিয়েছিল। আদালতের ওই বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যেই সরকার তাদের নতুন নীতির ঘোষণা দেবে বলে জানা যাচ্ছে। বায়ু দূষণ ঠেকানোর লক্ষ্যে এর আগে ব্রিটেন সরকার যে পরিকল্পনা নিয়েছিল, বিচারকরা সেটিকে অপর্যাপ্ত বলে মন্তব্য করেছিলেন। বায়ুদূষণ নিয়ন্ত্রণে সরকারের বহুল প্রত্যাশিত ৩৯০ কোটি ডলারের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এ পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে। সূত্র: বিবিসি বাংলা এবং দি নিউইয়র্ক টাইমস
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
রাশিয়ার সর্বাধুনিক পারমাণবিক প্রযুক্তি পরিদর্শনে আন্তর্জাতিক প্রতিনিধিদল
জুলাই ২০, ২০১৭ বৃহস্পতিবার ০৭:০২ এএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় কর্মরত আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি সংস্থাসহ (আইএইএ) বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত ৪২ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল সম্প্রতি রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গ সফর করেন। এ সময় তারা রাশিয়ার সর্বাধুনিক পারমাণবিক শক্তি প্রযুক্তি সংবলিত বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন করেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। প্রতিনিধিদল যেসব প্রকল্প ঘুরে দেখে তার মধ্যে রয়েছে-লেনিনগ্রাদ পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের দ্বিতীয় ধাপে নির্মীয়মাণ ৩+ প্রজন্মের প্রযুক্তি (ভিভিইআর-১২০০) নির্ভর একটি পারমাণবিক বিদ্যুৎ ইউনিট। এখানে উল্লেখ্য, বিশ্বে এটিই হচ্ছে ৩+ প্রজন্মের দ্বিতীয় পারমাণবিক বিদ্যুৎ ইউনিট। ইতোপূর্বে প্রথম বিদ্যুৎ ইউনিটটি রাশিয়ার নভোভারোনেঝে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু করেছে। এই প্রজন্মের বিদ্যুৎ ইউনিটগুলো সর্বাধিক নিরাপদ বলে বিবেচিত। বাংলাদেশে পাবনা জেলার রূপপুরে অনুরূপ দুটি পারমাণবিক বিদ্যুৎ ইউনিট নির্মাণ করছে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি সংস্থা-রোসাটম। প্রতিনিধিবৃন্দকে বাল্টিক জাহাজ নির্মাণ কারখানা, ভাসমান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র- একাডেমিক লামানোসভ এবং পারমাণবিক শক্তিচালিত নতুন প্রজন্মের আইস্ ব্রেকার ঘুরে দেখানো হয়। অস্ট্রিয়া, ব্রাজিল, চীন, জর্ডান, হাঙ্গেরি, পানমা, পেরু, দক্ষিণ আফ্রিকা, সুদান, সিঙ্গাপুর, সুইজারল্যান্ড, থাইল্যান্ডসহ অন্যান্য দেশের কূটনীতিক এবং পরমাণু বিশেষজ্ঞরা অন্তর্ভুক্ত ছিলেন প্রতিনিধিদলে। ভিয়েনায় কর্মরত একটি আন্তর্জাতিক সংস্থার রুশ প্রতিনিধি ভ্লাদিমির ভারোনকভের মতে, এ সফরের মূল বিষয় ছিল পরমাণু শক্তি ও পরিবেশ। লেনিনগ্রাদ পারমাণবিক শক্তি কেন্দ্রটি প্রমাণ করে যে, পরমাণু শক্তি প্রকৃত অর্থেই ‘গ্রিন’। প্রতিনিধিরা সফরকালে তাদের মনে উদিত বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পেয়েছেন এবং এ ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছেন যে, রুশ পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে নিরাপদ। আইএইএর বোর্ড অব গভর্নরের চেয়ারম্যান টেবোগো সিওকোলো কার্যক্রমে রাশিয়ার ভূমিকার কথার উল্লেখ করে বলেন, ‘আমাদের জন্য দেখা এবং শেখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কিভাবে রাশিয়া আইএইএর কিছু গাইড লাইন বাস্তবায়ন করছে, অব্যাহতভাবে নতুন নতুন আবিষ্কার করে যাচ্ছে এবং  পারমাণবিক প্রযুক্তি, নিরাপত্তা, সুরক্ষা, পরমাণু সংস্কৃতির ক্ষেত্রে যেসব উন্নয়ন সাধন করছে।’ রাশিয়া আইএইএর শীর্ষস্থানীয় এবং এর বোর্ড অব গভর্নরসের অন্যতম সদস্য।
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
তেল উৎপাদন কমাতে চুক্তির মেয়াদ নয় মাস বাড়ালো ওপেক
মে ২৯, ২০১৭ সোমবার ১১:৩৬ এএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
আগামী বছরের মার্চ পর্যন্ত এই নয় মাস প্রতিদিন এক দশমিক আট মিলিয়ন ব্যারেল তেল উৎপাদন হ্রাস করবেজ্বালানি তেল রফতানিকারক দেশগুলোর সংগঠন ওপেক। এ পরিমাণ তেল উৎপাদন কমলে অপরিশোধিত তেলের দাম এক শতাংশ বেড়ে ব্যারেলপ্রতি ৫৪ দশমিক ৫০ ডলার হবে বলে আশা করছেন ওপেক নেতারা। অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ওপেকের বৈঠকে তেলের উৎপাদন কমানো সংক্রান্ত চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর এক সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে তেলের উৎপাদন হ্রাস করা হবে। এর আগে তেল উৎপাদন হ্রাসের মেয়াদ আরও এক বছর বাড়ানোর দাবি ওঠে সদস্য দেশগুলোর পক্ষ থেকে। ওই বৈঠকে ওপেকভুক্ত তেল রফতানিকারক দেশ ছাড়াও ওপেকবহির্ভূত তেল উৎপাদনকারী দেশ রাশিয়াও উপস্থিত ছিল। সবার সম্মতিতে ওই সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে বৈঠক সূত্রে জানানো হয়।২০১৪ সাল থেকে গত তিন বছর বিশ্ববাজারে তেলের দাম কম হওয়ায় রাজস্ব হ্রাস পায়। ফলে তেল রফতানিকারক দেশগুলো রাজস্ব বৃদ্ধির জন্য এক ধরনের লড়াই করছিল।রাশিয়ার নেতৃত্বাধীন অ-ওপেকভুক্ত ডজনখানেক তেল উৎপাদনকারী দেশ উৎপাদন কমানোর জন্য জানুয়ারিতে ওপেককে অনুরোধ জানিয়েছিলো। এজন্য সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে ওইসব দেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন ওপেক নেতারা। সূত্র:  রয়টার্স।  
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব নিরূপণে অক্সিডেন্টাল এর শেয়ারহোল্ডারদের প্রস্তাব পাস
মে ১৪, ২০১৭ রবিবার ০৯:৩৭ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
যুক্তরাষ্ট্রের তেল-গ্যাস খাতের কোম্পানী অক্সিডেন্টাল পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের শেয়ারহোল্ডাররা কোম্পানির ব্যবসায় জলবায়ু পরিবর্তনের দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব নিরূপণের প্রস্তাব দিয়েছেন। অক্সিডেন্টাল কর্তৃপক্ষ শেয়ারহোল্ডারদের প্রস্তাবের বিরোধিতা করলেও শুক্রবার অনুষ্ঠিত ভোটাভুটিতে এ-সংক্রান্ত প্রস্তাব পাস হয়েছে। শেয়ারহোল্ডাররা ২০১৮ সাল থেকে অক্সিডেন্টালের বার্ষিক প্রতিবেদনে পরিবেশ-সংক্রান্ত দৃশ্যপট সংযোজনের প্রস্তাব দিয়েছেন। এতে বৈশ্বিক উষ্ণতা সীমিত রাখতে গৃহীত প্রয়াসগুলো অক্সিডেন্টালের ব্যবসায় যে সম্ভাব্য ঝুঁকি সৃষ্টি করতে পারে, তা নিরূপণ করতে হবে। নতুন প্রস্তাবের পক্ষে কত শতাংশ শেয়ারহোল্ডার ভোট দিয়েছেন, অক্সিডেন্টাল এখনো সে তথ্য জানায়নি। তবে এ প্রস্তাবের পক্ষে ব্যাপক সমর্থনের কথা কোম্পানি স্বীকার করেছে। অক্সিডেন্টাল বলেছে, চার কার্যদিবসের মধ্যে তারা যুক্তরাষ্ট্রের সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনকে (এসইসি) শেয়ারহোল্ডারদের সমর্থন সম্পর্কে বিস্তারিত জানাবে। অক্সিডেন্টালের চেয়ারম্যান ইউজিন এল. ব্যাচহেল্ডার বলেছেন, ‘আমরা এ ইস্যুতে শেয়ারহোল্ডারদের সঙ্গে মতবিনিময় অব্যাহত রাখব। জলবায়ু-সংক্রান্ত ঝুঁকি ও সুযোগের বিষয়ে কোম্পানির ভাবনা ও পরিকল্পনার আরো তথ্য প্রকাশ করা হবে।’ শেয়ারহোল্ডারদের পাসকৃত প্রস্তাবটি অক্সিডেন্টাল মানতে বাধ্য নয়। ব্যবসায়িক পরিকল্পনা ও পূর্বাভাসে জলবায়ু পরিবর্তন ও অন্যান্য পরিবেশগত ঝুঁকি উল্লেখ করতে যুক্তরাষ্ট্রের তেল ও গ্যাস উত্পাদক কোম্পানিগুলোর ওপর শেয়ারহোল্ডারদের চাপ ক্রমে বাড়ছে। যে কোম্পানিগুলোকে সবচেয়ে বেশি চাপের মুখোমুখি হতে হচ্ছে, অক্সিডেন্টাল তার একটি। ওয়েস্ট টেক্সাস ও নিউ মেক্সিকোর পারমিয়ান অববাহিকায় তেল উত্তোলন করছে অক্সিডেন্টাল। যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে কলম্বিয়া, ওমান ও কাতারসহ কয়েকটি দেশে খননকাজ করছে কোম্পানিটি। অক্সিডেন্টাল শেয়ারহোল্ডারদের পক্ষে নতুন প্রস্তাবটি উত্থাপন করেছিল নাথান কামিংস ফাউন্ডেশন ও ওয়েজপাথ ইনভেস্টমেন্ট ম্যানেজমেন্ট। নাথান কামিংস ফাউন্ডেশন বলেছে, শুক্রবারের ভোট তেল-গ্যাস কোম্পানিগুলোকে জানিয়ে দিয়েছে যে, বিনিয়োগকারীরা জলবায়ু ইস্যুগুলোকে বেশ গভীরভাবে দেখছে। নাথান কামিংস ফাউন্ডেশনের পরিচালক (করপোরেট অ্যান্ড পলিটিক্যাল অ্যাকাউন্ট্যাবিলিটি) লরা ক্যাম্পোস অক্সিডেন্টাল শেয়ারহোল্ডারদের ভোটাভুটিকে ‘ভীষণ তাত্পর্যপূর্ণ’ বলে অভিহিত করেছেন। তিনি আরো বলেন, ‘এটা প্রথম ভোট। কিন্তু এটাই শেষ হচ্ছে না।’ অক্সিডেন্টাল পরোক্ষভাবে এ ভোটের বিপক্ষে প্রচারণা চালিয়েছিল। প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দিতে শেয়ারহোল্ডারদের প্রতি আহ্বান জানায় কোম্পানিটি। প্রচারণায় বলা হয়, অক্সিডেন্টাল এরই মধ্যে ঝুঁকি ব্যবস্থাপনায় জলবায়ু-সংক্রান্ত ইস্যুগুলোর আপেক্ষিকতা সম্পর্কে আগের চেয়ে বেশি পরিমাণ তথ্য প্রকাশের এবং জলবায়ু-সংক্রান্ত ঝুঁকি ও সুযোগকে কোম্পানির দৃশ্যপট-পরিকল্পনা প্রণয়নে খোলাখুলিভাবে সংযোজনের বিষয়ে কাজ শুরু করেছে। বিশ্বের বৃহত্তম সম্পদ ব্যবস্থাপক ব্ল্যাকরক ইনকরপোরেশন জলবায়ু-সংক্রান্ত প্রস্তাবটি সমর্থন করেছে। এতে আভাস মিলছে, আর্থিক ব্যবস্থাপনা কোম্পানিগুলো জ্বালানি খাতে বিনিয়োগের বিষয়ে নতুন করে ভাবছে। কারণ এবারই প্রথমবারের মতো ব্ল্যাকরক জলবায়ু ইস্যুতে শেয়ারহোল্ডারদের এমন প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিয়েছে, যেখানে কোম্পানির ম্যানেজমেন্ট প্রস্তাবের বিরুদ্ধাচরণ করেছে। সেরেসের কার্বন অ্যাসেট রিস্ক বিভাগের পরিচালক শানা ক্লিভল্যান্ড অক্সিডেন্টাল শেয়ারহোল্ডারদের প্রস্তাব পাসের ঘটনাকে ‘বড় ধরনের জয়’ বলে অভিহিত করেছেন। বোস্টনভিত্তিক অলাভজনক সংগঠন সেরেস টেকসই ব্যবসা সংস্কৃতির পক্ষে কাজ করছে। সেরেস বিভিন্ন কোম্পানিতে শেয়ারহোল্ডারদের পক্ষে দেয়া প্রস্তাবের একটি ডাটাবেজ সংকলন করেছে। প্রথম দিকে শেয়ারহোল্ডারদের এ ধরনের প্রস্তাব খুব বেশি সমর্থন পায়নি। ২০১১ সালে অক্সিডেন্টাল শেয়ারহোল্ডাররা কোম্পানির পর্ষদে একজন স্বতন্ত্র পরিবেশ বিশেষজ্ঞকে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব দেন। মাত্র ৫ দশমিক ৩ শতাংশ ভোট পেয়েছিল ওই প্রস্তাব। গত বছর শেয়ারহোল্ডারদের পক্ষ থেকে জীবাশ্ম সম্পদের ঝুঁকি সম্পর্কে প্রতিবেদন প্রকাশের একটি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়। সামান্য ব্যবধানে হেরে গেলেও প্রস্তাবটি ৪৯ শতাংশ শেয়ারহোল্ডারের সমর্থন পেয়েছিল। শানা ক্লিভল্যান্ড বলেন, অক্সিডেন্টালের ভোটে যে বার্তা মিলছে তা হলো, রাজনৈতিক পালাবদলের পাশাপাশি বাজারসংশ্লিষ্ট শক্তিগুলোও জ্বালানি রূপান্তরের পথে হাঁটছে। এক্সন মবিল, রয়্যাল ডাচ শেলসহ বড় কয়েকটি তেল কোম্পানি বিনিয়োগকারীদের সামনে জলবায়ু-সংক্রান্ত ঝুঁকি গবেষণার তথ্য তুলে ধরছে। অবশ্য এসব কোম্পানি গবেষণার সব তথ্য প্রকাশ করছে না। কিছু ক্ষেত্রে পরিবেশকর্মীরা এসব করপোরেট গবেষণার উপসংহার নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। কোনো কোনো গবেষণায় এমনও বলা হয়েছে যে, ভবিষ্যতে কার্বন নিঃসরণ নাটকীয়ভাবে হ্রাসের উদ্যোগ নিলেও কোম্পানিগুলোর ব্যবসা তেমন ঝুঁকিতে পড়বে না। জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে শেয়ারহোল্ডারদের অব্যাহত চাপের মুখে রয়েছে এক্সনসহ কয়েকটি কোম্পানি। চলতি মাসের শেষ দিকে এক্সন ও শেভরনের বার্ষিক সভায় শেয়ারহোল্ডাররা কয়েকটি প্রস্তাবে ভোট দেবেন। একটি প্রস্তাবে এক্সনকে নতুন প্রযুক্তি ও জলবায়ু পরিবর্তন-বিষয়ক আইন কোম্পানির সম্পদে কী প্রভাব ফেলবে, সে বিষয়ে আরো বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করতে বলা হয়েছে। শেভরন শেয়ারহোল্ডারদের একটি প্রস্তাবে কোম্পানিকে লো-কার্বন ইকোনমিতে রূপান্তরের কৌশল প্রণয়নের কাজ শুরু করতে বলা হয়েছে। অক্সিডেন্টালের মতো এক্সন এবং শেভরনও শেয়ারহোল্ডারদের প্রতি প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে। দুই কোম্পানি দাবি করেছে, তারা সতর্কভাবে ভবিষ্যতের পরিকল্পনা প্রণয়ন করছে এবং এরই মধ্যে এ বিষয়ে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ তথ্য প্রকাশ করেছে। সূত্র: দি ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল।  
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
কয়লার ব্যবহার একদিন বন্ধ রেখেই বিদ্যুৎ উৎপাদন করলো যুক্তরাজ্য
এপ্রিল ২২, ২০১৭ শনিবার ০৮:৩১ পিএম - বিবিসি নিউজ
বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য কয়লা পোড়ানো প্রথমবারের মতো পুরো একদিন বন্ধ রাখলো যুক্তরাজ্য। শিল্প বিপ্লব শুরুর ১৩৫ বছর পর কয়লা ছাড়াই অন্যান্য উৎস থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছে দেশটি। দেশটির বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল গ্রিড এ তথ্য জানিয়ে বলেছে, কয়লা ব্যবহার না করে ব্রিটেনে বিদ্যুৎ উৎপাদনের এক ‘সন্ধিক্ষণ’ ছিলো শুক্রবারের দিনটি। অর্থাৎ ২৪ ঘণ্টা জাতীয় গ্রিডে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়নি। এর আগে গত মে মাসে প্রায় ১৯ ঘন্টা কয়লা বিদ্যুৎ উৎপাদন থেকে বিরত ছিল দেশটি। একইভাবে গত বৃহস্পতিবারও ১৯ ঘণ্টা কয়ালামুক্ত ছিল ব্রিটেনের বিদ্যুৎ সরবরাহ। আর এর পরদিন শুক্রবার ২৪ ঘণ্টা কয়লামুক্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে সক্ষম হয় দেশটির ন্যাশনাল গ্রিড। কার্বন নিঃসরণ কমাতে ২০২৫ সালের মধ্যে সব কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ করার পরিকল্পনা করেছে ব্রিটিশ সরকার। অন্যান্য উৎস থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ১৮৮২ সালে লন্ডনের হোলবর্ন ভায়াডাক্ট এলাকায় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হয়। এরপর থেকে এই প্রথমবারের মতো  বিদ্যুৎ উৎপাদনে কয়লার ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকলো দেশটি। দেশটির ন্যাশনাল গ্রিডের কর্মকর্তা কোর্ডি ও’ হারা বলেন, “শিল্প বিপ্লব শুরুর পর প্রথমবারের মতো কয়লামুক্ত বিদ্যুৎ উৎপাদন বন্ধ থাকাটা ছিল এক সন্ধিক্ষণ। এভাবেই আমাদের বিদ্যুৎ খাত পরিবর্তিত হচ্ছে।” গ্রিড ওয়াচের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার ন্যাশনাল গ্রিডের অর্ধেক বিদ্যুৎ এসেছিলো গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে, এক-চতুর্থাংশ আসে পারমাণবিক কেন্দ্র থেকে। আর বাকিটা এসেছে জৈব, পানি, বায়ু ও সৌরবিদ্যুৎ থেকে।    
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বাজার ফের ঊর্ধ্বমুখি
মার্চ ৩১, ২০১৭ শুক্রবার ১০:৫২ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের আন্তর্জাতিক বাজার গত বুধবার থেকে ঊর্ধ্বমুখি হয়েছে। নিউইয়র্কে ২ দশমিক ৪ ও লন্ডনে ২ দশমিক ১ শতাংশ দাম বেড়েছে জ্বালানি তেলের। বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, সর্বশেষ সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যাশামাফিক জ্বালানি তেলের সরবরাহ না বাড়ায় এবং গ্যাসোলিনের সরবরাহ কমে আসায় বাড়তে শুরু করেছে জ্বালানি তেলের দাম। নিউইয়র্ক মার্কেন্টাইল এক্সচেঞ্জে (নিমেক্স) ব্যারেলে ১ ডলার ১৪ সেন্ট দাম বেড়েছে ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েটের (ডব্লিউটিআই)। আগামী মে মাসে সরবরাহ চুক্তিতে বুধবার এখানে ২ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়ে প্রতি ব্যারেল ডব্লিউটিআই বিক্রি হয়েছে ৪৯ ডলার ৫১ সেন্টে। ফ্যাক্টসেটের তথ্যমতে, গত ৯ মার্চের পর নিমেক্সে এটিই ডব্লিউটিআইয়ের সর্বোচ্চ দর। অন্যদিকে লন্ডন ইন্টারকন্টিনেন্টাল এক্সচেঞ্জে (আইসিই) ব্যারেলে ১ ডলার ৯ সেন্ট দাম বেড়েছে ব্রেন্টের। মে মাসে সরবরাহ চুক্তিতে ২ দশমিক ১ শতাংশ বেড়ে প্রতি ব্যারেল ব্রেন্ট বিক্রি হয়েছে ৫২ ডলার ৪২ সেন্টে। যুক্তরাষ্ট্রের এনার্জি ইনফরমেশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (ইআইএ) এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২৪ মার্চ শেষ হওয়া সপ্তাহে দেশটিতে জ্বালানি তেলের সরবরাহ বেড়েছে নয় লাখ ব্যারেল। ওই সপ্তাহে দেশটিতে ৫৩ কোটি ৪০ লাখ ব্যারেল জ্বালানি তেল সরবরাহ ছিল। তবে আমেরিকান পেট্রোলিয়াম ইনস্টিটিউট (এপিআই) জানিয়েছিল, ওই সপ্তাহে দেশটিতে জ্বালানি তেলের সরবরাহ ১৯ লাখ ব্যারেল বাড়তে পারে। ইআইএর প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, ২৪ মার্চ শেষ হওয়া সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে গ্যাসোলিনের সরবরাহ ৩৭ লাখ ব্যারেল কমেছে। আর মজুদ কমেছে ২৫ লাখ ব্যারেল। জ্বালানি তেলের দাম বাড়াতে গ্যাসোলিনের এই সরবরাহ ও মজুদ ঘাটতিও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করছেন বাজার বিশ্লেষকরা। সূত্র: মার্কেটওয়াচ।  
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
‘পরিবেশ দূষণ রোধে বেইজিংয়ের সর্বশেষ কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটিও বন্ধ হলো’
মার্চ ২৪, ২০১৭ শুক্রবার ০৯:০৯ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
অবশেষে চীনের রাজধানী বেইজিংয়ের বৃহৎ কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির উৎপাদনও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ওই শহরের বিদ্যুৎ উৎপাদনের জ্বালানি হিসেবে এখন পুরোপরি প্রাকৃতিক গ্যাস ব্যবহার হচ্ছে। কংগ্রেসের সর্বশেষ বার্ষিক সভার ভাষণে পরিবেশ দূষণ রোধে চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং বলেন, ‘আবার আমাদের আকাশ নীল করব’। এরপরই বেইজিংয়ের হুয়াংনেং কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রটির উৎপাদন বন্ধের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত আসে। ২০১৩ সালে নেওয়া পাঁচ বছরের বায়ু দূষণ প্রকল্পের আওতায় বেইজিংই এখন চীনের প্রথম শহর, যেখানে সবগুলো বিদ্যুৎকেন্দ্রে জ্বালানি হিসেবে প্রাকৃতিক গ্যাস ব্যবহৃত হচ্ছে। ওই বছরই বেইজিংয়ে ২২ মিলিয়ন টন কয়লা ব্যবহার করা হয়েছিল। ব্যবহার কমিয়ে দেওয়ায় চলতি বছর ১০ মিলিয়নের নিচে পৌঁছাবে। ইতোমধ্যে প্রধান কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ করে দিয়েছে চীন। আর ২০১৩ সালের পর হুয়াংনেং চতুর্থ কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র, যার কার্যক্রম বন্ধও করা হলো। এর আগে গত বছর ১০০টি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধের নির্দেশ দেয় চীনের এনার্জি রেগুলেটর। দেশটির ১১টি প্রদেশে প্রায় ১০০ গিগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করে ওই বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো। নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহারকে জোরদার করতেই দেশটির সরকার এমন পদক্ষেপ নিয়েছে। এটাকে জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার বন্ধের এ যাবৎ কালের সবচেয়ে বড় উদ্যোগ হিসেবে মনে করা হচ্ছে। চীনের জাতীয় জ্বালানি কর্তৃপক্ষ (এনইএ) জানায়, বন্ধ করার নির্দেশ পাওয়া ওই ১০০ বিদ্যুৎকেন্দ্রের মধ্যে বেশ কিছু নির্মাণাধীন প্রকল্পও রয়েছে। প্রতিবেদন মতে, নির্মাণাধীন ওই প্রকল্পগুলোর মোট মূল্য প্রায় ৬ হাজার ২০০ কোটি ডলার। এ প্রকল্পগুলোর বেশিরভাগই জিয়াংজিং, ইনার মঙ্গোলিয়া, শানঝি, গানসু, ওইনগাইসহ উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের রাজ্যগুলোতে অবস্থিত। এই উদ্যোগ সম্পর্কে সরকারের তরফ থেকে বলা হয়েছে, সূর্য ও বাতাসের মতো উৎসগুলো থেকে নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বাড়িয়ে কয়লার ব্যবহার কমানোর জন্যই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ হয়ে গেলে দেশের নাগরিকদের জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহের তেমন কোনো ব্যাঘাত ঘটবে না বলেও সরকারের তরফে বলা হয়েছে। এছাড়া বায়ু দূষণ রোধে চলতি বছর আরো ৩০ শতাংশ কয়লা ব্যবহার কমাবে চীনের রাজধানী বেইজিং। যানজট ও কয়লার অধিক ব্যবহারের ফলে বায়ু দূষণ প্রতিরোধে চলতি বছর বেইজিং প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। সূত্র: এএফপি  
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
কয়লা প্রকল্পে অর্থায়ন বন্ধের ঘোষণা করলো জার্মান ব্যাংকিং জায়ান্ট ডয়েচে ব্যাংক
ফেব্রুয়ারি ০২, ২০১৭ বৃহস্পতিবার ০৮:৩৩ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
বৈশ্বিক উষ্ণতা মোকাবেলায় অঙ্গীকার করে প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে সই করা জার্মান ব্যাংকিং জায়ান্ট ডয়েচে ব্যাংক কয়লা প্রকল্পে অর্থায়ন বন্ধ করার ঘোষণা দিয়েছে। মঙ্গলবার তাদের নতুন এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে এক বিবৃতিতে বলেছে, ডয়েচে ব্যাংক ও এর সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলো কয়লা খনিতে নতুন করে অর্থায়নে অনুমোদন দেবে না এবং বর্তমানে যেসব কয়লাভিত্তিক প্রকল্পে ডয়েচে ব্যাংক বিনিয়োগ করেছে, ধীরে ধীরে তা কমিয়ে আনা হবে। একই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটি নতুন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণেও অর্থায়ন করবে না। এ সিদ্ধান্ত গত বছরের প্যারিস জলবায়ু সম্মেলনের অঙ্গীকারের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ বলে মনে ঋণদাতা এই প্রতিষ্ঠানটি। এটি বিশ্বের প্রথম সর্বজনীন জলবায়ু চুক্তি। ১৯২টি দেশ প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে সই করেছে। সূত্র: এএফপি।  
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
গত ৭ বছরের মধ্যে ২০১৬ সালে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে সবচেয়ে বেশি
জানুয়ারি ০১, ২০১৭ রবিবার ১০:২৪ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
২০০৯ সালের পর এ বছরই সবচেয়ে জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে। বছরের শেষ দিনে এসে আন্তর্জাতিক বাজারে কমেছে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম। এদিন জ্বালানি তেলের বাজারটি নিম্নমুখী থাকলেও, এ বছর জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে ৪৫ শতাংশের কাছাকাছি। শুক্রবার নিউইয়র্ক মার্কেন্টাইল এক্সচেঞ্জে (নিমেক্স) আগামী ফেব্রুয়ারিতে সরবরাহ চুক্তিতে ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েটের (ডব্লিউটিআই) দাম ব্যারেলে ৫ সেন্ট কমেছে। এদিন দশমিক ১ শতাংশ কমে প্রতি ব্যারেল ডব্লিউটিআই বিক্রি হয়েছে ৫৩ দশমিক ৭২ ডলারে। তবে ২০১৬ সালে ডব্লিউটিআইয়ের দাম সব মিলিয়ে বেড়েছে প্রায় ৪৫ শতাংশ। এর মধ্যে গত ডিসেম্বরেই পণ্যটির দাম বেড়েছে ৮ শতাংশের বেশি। অন্যদিকে মার্চে সরবরাহ চুক্তিতে লন্ডনের ইন্টারকন্টিনেন্টাল এক্সচেঞ্জে (আইসিই) ব্যারেলে ২২ সেন্ট কমেছে ব্রেন্ট অয়েলের দাম। এদিন দশমিক ৪ শতাংশ কমে প্রতি ব্যারেল ডব্লিউটিআই বিক্রি হয়েছে ৫৬ দশমিক ৬৩ ডলারে। চলতি বছর সব মিলিয়ে ব্রেন্ট অয়েলের দাম বেড়েছে প্রায় ৫২ শতাংশ। বার্ষিক হিসাবে ২০০৯ সালের পর এ বছরই সর্বোচ্চ দরবৃদ্ধি ঘটেছে পণ্যটির। শুক্রবার আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম কমে যাওয়ার জন্য নববর্ষের ছুটি উপলক্ষে বাজার বন্ধ থাকাকে দায়ী করছেন বিশ্লেষকরা। পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রে জ্বালানি তেল শোধনাগার বৃদ্ধির খবরও এদিন বাজারকে নিম্নমুখী অবস্থানে রাখতে কাজ করেছে। বাকের হিউজেসের তথ্য অনুযায়ী, সর্বশেষ সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে তেল শোধনাগারের সংখ্যা বেড়েছে দুটি। সব মিলিয়ে দেশটিতে বর্তমানে ৫২৫টি তেল শোধনাগার সক্রিয় রয়েছে। ২০১৬ সালটি জ্বালানি তেলের জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ ছিল। ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ের পর থেকে অব্যাহত দরপতনের মুখে প্রায় ৬০ শতাংশ দাম পড়ে গিয়েছিল পণ্যটির। এমন অবস্থায় শীর্ষ তেল রফতানিকারক দেশগুলোর সংগঠন ওপেক পণ্যটির উত্তোলন কমিয়ে দাম বাড়ানোর চেষ্টায় ছিল। একই চেষ্টা করেছে রাশিয়াসহ ওপেকবহির্ভূত আরো কয়েকটি শীর্ষ উত্তোলক দেশ। চলতি বছরের শুরুতে ওপেক পণ্যটিতে উত্তোলনসীমা আরোপের কাছাকাছি চলে গিয়েছিল। শেষ মুহূর্তে দুই শীর্ষ উত্তোলক দেশ ইরান ও সৌদি আরবের মধ্যে সমঝোতার অভাবে সেবার জ্বালানি তেলের উত্তোলন কমানো সম্ভব হয়নি। বছরের শুরুতে উত্তোলন কমানোর উদ্যোগ ভেস্তে গেলেও এতে দমে যায়নি ওপেক। তারা বছরজুড়েই শীর্ষ উত্তোলক দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে গেছে। এরই ফলে গত ৩০ নভেম্বর অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় ওপেকের বৈঠকে সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে একটি চুক্তি করে সংগঠনটি। চুক্তি অনুযায়ী, ওপেকভুক্ত দেশগুলো সম্মিলিতভাবে দৈনিক ৩ কোটি ২৫ লাখ ব্যারেল জ্বালানি তেল উত্তোলন করবে। আজ থেকে এ চুক্তি কার্যকর হওয়ার কথা। ওপেকের পাশাপাশি রাশিয়াসহ আরো ১১টি জ্বালানি তেল উত্তোলক দেশ পণ্যটির উত্তোলন কমিয়ে আনতে একটি চুক্তি করেছে। চুক্তিগুলো বাস্তবায়ন হলে শীর্ষ উত্তোলক দেশগুলো দৈনিক ১৮ লাখ ব্যারেল জ্বালানি তেল কম উত্তোলন করবে। মূলত এ দুই চুক্তির প্রভাবেই ধসে যাওয়া তেলের বাজারটির চাঙ্গা হয়ে উঠছে। যদি চুক্তিগুলো পরিপূর্ণভাবে বাস্তবায়ন করা হয়, তবে ২০১৭ সালের মধ্যে জ্বালানি তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ৬০ ডলারে উঠে যাবে। ২০১৮ সাল নাগাদ প্রতি ব্যারেল তেলের দাম গিয়ে দাঁড়াবে ৭০ ডলারে। সূত্র: মার্কেটওয়াচ  
ক্যাটাগরি: অন্যান্য দেশ
    সাম্প্রতিক অন্যান্য দেশ এর খবর
কয়লা প্রকল্পে অর্থায়ন বন্ধের ঘোষণা করলো জার্মান ব্যাংকিং জায়ান্ট ডয়েচে ব্যাংক
গত ৭ বছরের মধ্যে ২০১৬ সালে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে সবচেয়ে বেশি
আন্তর্জাতিক বাজারে ফের জ্বালানি তেলের দাম কমেছে
ইরানে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের উত্তোলন বেড়েছে প্রায় ১৯ শতাংশ
তেলক্ষেত্র উন্নয়নে রাশিয়ার সঙ্গে চুক্তি করেছে ইরান
ওপেক-বহির্ভূত ১১টি দেশ অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের উত্তোলন কমাবে
আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে
ক্যান্সার চিকিৎসায় রোসাটমের সাফল্য
রুশ গ্রিডে যুক্ত হলো বিশ্বের প্রথম ৩+ প্রজন্মের পারমাণবিক বিদ্যুৎ ইউনিট
কেনিয়ার গ্রামে সৌর বিদ্যুতে চলছে টেলিভিশন
চীনের জ্বালানী খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে চায় সৌদি আরব
চীনের কয়লা খনিতে বন্যায় ৫ জনের মৃত্যু, নিখোঁজ ২
ইরানে রাষ্ট্রায়ত্ত তেল কোম্পানির প্রধান পদে রদবদল
ইরানের অপরিশোধিত জ্বালানি তেল পুনরায় কিনছে শেল
পারমাণবিক শক্তির শন্তিপূর্ণ ব্যবহারে রাশিয়া-কেনিয়া সমঝোতা
আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দর ৫০ ডলার ছাড়িয়েছে
যুক্তরাষ্ট্রে কয়লা উত্তোলন ও রপ্তানি কমছে
এপ্রিলে রেকর্ড অপরিশোধিত জ্বালানি তেল রপ্তানি করেছে ইরাক
ভেনিজুয়েলায় বিদ্যুৎ সংকটের কারণে সপ্তাহে দুই দিন কাজ করার নির্দেশ
চীনে কয়লা খনিতে দুর্ঘটনায় ১৯ জনের মৃত্যু
কানাডায় পেট্রোনাসের এলএনজি প্রকল্পের অনুমোদন আবারো বিলম্বিত
নাইজেরিয়ার রাষ্ট্রীয় তেল কোম্পানির ১৬০০ কোটি ডলার রাজস্ব ফাঁকি
স্বাভাবিক হচ্ছে জ্বালানি তেলের দাম
চীনে কয়লা খনি দুর্ঘটনায় ১২ জন নিহত
রাশিয়ায় কয়লা খনি দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৬
জ্বালানি তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ৩০ ডলারের নিচে
তেলের দরপতনে সান্তোসের লোকসান ১৯০ কোটি ডলার
তেল উৎপাদন হ্রাস করবে না সৌদি আরব
তেলের উৎপাদন না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ৪ দেশ
    FOLLOW US ON FACEBOOK


Explore the energynewsbd.com
হোম
এনার্জি ওয়ার্ল্ড
মতামত
পরিবেশ
অন্যান্য
এনার্জি বিডি
গ্রীণ এনার্জি
সাক্ষাৎকার
বিজনেস
আর্কাইভ
About Us Contact Us Terms & Conditions Privacy Policy Advertisement Policy