ঢাকা, শুক্রবার, এপ্রিল ১৯, ২০১৯, বৈশাখ ৫, ১৪২৬ ০৫:১৫ এএম
  
হোম এনার্জি বিডি এনার্জি ওয়ার্ল্ড গ্রীণ এনার্জি মতামত সাক্ষাৎকার পরিবেশ বিজনেস অন্যান্য আর্কাইভ
সর্বশেষ >
English Version
   
গ্যাস
‘গ্যাসের মূল্য পুনর্নির্ধারণ হবে যৌক্তিকভাবে’
গ্যাস বিতরণ কোম্পানিগুলোকে ভবিষ্যতে দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব আরও বাস্তব সম্মত উপায়েদেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম। গ্যাসের মূল্যহার পুনর্নির্ধারণ নিয়ে ঢাকায় টিসিবি অডিটরিয়ামে চার দিনের গণশুনানির শেষদিন বৃহস্পতিবার এ কথা বলেন তিনি। এ সময় কমিশনের সদস্য রহমান মুর্শেদ, সদস্য মাহমুদউল হক ভুইয়া, সদস্য আব্দুল আজিজ খান ও সদস্য মিজানুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম বলেন, গ্যাসের বাড়তি দাম নিয়ে ভোক্তাদের আতঙ্কিত  হওয়ার কিছু নেই। কোম্পানীগুলোর প্রস্তাব অনুযায়ী দাম পুনর্নির্ধারণ হবে না। কমিশন যথাযথ বিচার বিবেচনা করে যক্তিযুক্তভাবে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেবে। আমদানি করা এলএনজির উচ্চ মূল্য সমন্বয়ে গ্যাসের দাম গড়ে ১০২ শতাংশ বৃদ্ধির প্রস্তাবের ওপর শুনানি অনুষ্ঠিত হলেও বাস্তবতা ও ন্যায্যতার ভিত্তিতেই নতুন মূল্য ঠিক করা হবে বলে ভোক্তাদের আশ্বস্ত করেন তিনি। চট্টগ্রাম অঞ্চলের কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির প্রস্তাবের ওপর এদিন সকালের সেশনে এবং পশ্চিমাঞ্চল গ্যাসের প্রস্তাবের ওপর বিকালের সেশনে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। রাজনৈতিক কর্মী, ভোক্তা, গ্রাহক স্বার্থ সংরক্ষণে বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধি, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা শুনানির বিভিন্ন ধাপে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরেন। তিতাস, বাখরাবাদ, জালালাবাদ গ্যাস কোম্পানির মতো কর্ণফুলি ও পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস কোম্পানিও ভারিত গড় মূল্যহার ৭ টাকা ৩৫ পয়সা থেকে ১৪ টাকা ৯১ পয়সা করার প্রস্তাব করেছে। অর্থাৎ ১০২ শতাংশ মূল্যবৃদ্ধির প্রস্তাব করেছে তারা। কর্ণফুলী ও পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস বিতরণ কোম্পানি তাদের প্রস্তাবে আবাসিকে এক চুলার বর্তমান দর ৭৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ৩৫০ টাকা, দুই চুলা ৮০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ৪৪০ টাকা এবং প্রি-পেইড মিটারে ৯ দশমিক ১০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৬ দশমিক ৪১ টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছে। অন্যদিকে, বিদ্যুতে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম তিন দশমিক ১৬ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৯ দশমিক ৭৪ টাকা, সিএনজিতে ৩২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪৮ দশমিক ১০ টাকা, সার উৎপাদনে প্রতি ঘনমিটার দুই দশমিক ৭১ টাকা থেকে বাড়িয়ে আট দশমিক ৪৪ টাকা, ক্যাপটিভ পাওয়ারে ৯ দশমিক ৬২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৮ দশমিক শূন্য ৪ টাকা, শিল্পে সাত দশমিক ৭৬ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২৪ দশমিক শূন্য পাঁচ টাকা এবং বাণিজ্যিকে ১৭ দশমিক শূন্য চার টাকার পরিবর্তে ২৪ দশমিক শূন্য পাঁচ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে। একইসঙ্গে তারা বিতরণ চার্জ নির্ধারণের প্রস্তাব দিয়েছে।  
ঢাবি’র ভূতত্ত্ব বিভাগ ও পেট্রোবাংলার মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই
মার্চ ১৫, ২০১৯ শুক্রবার ১১:১০ এএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও গবেষণা সংক্রান্ত কাজে প্রাতিষ্ঠানিক সহযোগিতার জন্য ভূতত্ত্ব বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে পেট্রোবাংলা এবং এর অধীনস্ত কোম্পানীসমূহের মধ্যে গত ১৩ মার্চ পেট্রোবাংলার বোর্ড রুমে সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান মোঃ রুহুল আমীন এর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব আবু হেনা মোঃ রহমাতুল মুনিম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। এছাড়াও, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী মতিন উদ্দিন আহমেদ, সুপারনিউমেরারী অধ্যাপক ড. বদরুল ইমাম, অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন ভূইয়া জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং পেট্রোবাংলার পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন। সমঝোতা স্মারকটি পেট্রোবাংলার পক্ষে সংস্থার সচিব সৈয়দ আশফাকুজ্জামান এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের পক্ষে বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী মতিন উদ্দিন আহমেদ স্ই করেন ।
ক্যাটাগরি: গ্যাস
ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের মূল্যহার পুনর্নির্ধারণে গণশুনানী শুরু ১১ মার্চ
ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০১৯ শুক্রবার ১১:৫৪ এএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
গ্যাসের সঞ্চালন ও সরবরাহ চার্জ এবং ভোক্তা পর্যায়ে মূল্যহার পুনর্নির্ধারণে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) আগামী ১১ মার্চ থেকে গণশুনানির দিন নির্ধারণ করে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। গত ১৩ ফেব্রুয়ারি জারি করা ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গণশুনানির প্রথম দিন ১১ মার্চ পেট্রোবাংলার উপস্থাপনার পর গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানী লিমিটেড (জিটিসিএল) এর সঞ্চালন মাসুল বৃদ্ধির প্রস্তাবের ওপর শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। শুনানি চলবে ১৪ মার্চ পর্যন্ত। পর্যায়ক্রমে ১২ মার্চ তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড ও সুন্দরবন গ্যাস কোম্পানী লিমিটেড, ১৩ মার্চ বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড ও জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম লিমিটেড এবং ১৪ মার্চ কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড ও পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস কোম্পানী লিমিটেডের গ্যাসের দাম বৃদ্ধির ওপর শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।
ক্যাটাগরি: গ্যাস
বেসরকারি পর্যায়ে এলএনজি আমদানির নীতিমালা হচ্ছে
জানুয়ারি ২০, ২০১৯ রবিবার ১২:১৫ পিএম - স্টাফ করেসপনডেন্ট, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
প্রাকৃতিক গ্যাসের চাহিদা পূরণে বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তাদের তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস বা এলএনজি আমদানির সুযোগ করে দিতে এলএনজি আমদানি নীতিমালা প্রণয়ন করতে যাচ্ছে সরকার। ইতোমধ্যে বেসরকারি পর্যায়ে এলএনজি আমদানি নীতিমালার খসড়া তৈরি করা হয়েছে বলে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, দেশীয় প্রাকৃতিক গ্যাসের বিকল্প অন্যতম উৎস হিসেবে জ্বালানির সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করতে আমদানিকৃত এলএনজি তা পূরণে সহায়ক হবে। সব স্টেকহোল্ডারদের মতামত নিয়ে খসড়া নীতিমালাটি শিগগিরই চূড়ান্ত করা হবে। ওই নীতিমালায় বলা হয়েছে, দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন, সার কারখানা, শিল্প প্রতিষ্ঠান, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান, সিএনজি এবং গৃহস্থালী খাতে প্রাকৃতিক গ্যাস পরিবেশ দূষণ রোধসহ কাঙ্ক্ষিত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। ভবিষ্যতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির কারণে প্রাকৃতিক গ্যাসের চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে পার্থক্য আরও বৃদ্ধি পাবে। এ পেক্ষাপটে, দেশীয় প্রাকৃতিক গ্যাসের বিকল্প অন্যতম উৎস হিসেবে আমদানিকৃত এলএনজিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। এলএনজি আমদানির জন্য বেসরকারি আমদানিকারকগণের এলএনজি আমদানি, মজুদ, রি-গ্যাসিফিকেশন ও সরবরাহের নিমিত্তে অবকাঠামো নির্মাণের অর্থায়নের ক্ষেত্রে সময়ে সময়ে আদেশ দ্বারা নির্ধারিত প্রমাণিত আর্থিক সামর্থ্য থাকতে হবে। আমদানিকারকের বিদ্যুৎ, জ্বালানি অথবা ভারীশিল্প খাতে কোনো প্রকল্প নির্মাণ বা পরিচালনার বাস্তব অভিজ্ঞতা থাকতে হবে অথবা আমদানিকারক কোনো তৃতীয়পক্ষের সাথে কনসোর্টিয়াম গঠন করে থাকলে উক্ত তৃতীয় পক্ষের এলএনজি খাতে কোনো প্রকল্প নির্মাণ বা পরিচালনার বাস্তব অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। আমদানিকারকগণ এ নীতিমালার বিধানাবলী সাপেক্ষে রিগ্যাসিফাইড এলএনজি নিজস্ব বিদ্যুৎ কেন্দ্র, শিল্প ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে ব্যবহার এবং অন্যান্য বিদ্যুৎ কেন্দ্র, শিল্প ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে বাণিজ্যিকভিত্তিতে বিক্রয়ের জন্য এলএনজি আমদানি করতে পারবেন। পেট্রোবাংলার পূর্বানুমতি নিয়ে বেসরকারি উদ্যোক্তাগণ পেট্রোবাংলার কোম্পানীসমূহের সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন ব্যবহার করে গ্যাস সরবরাহ করতে পারবেন। তবে এজন্য হুইলিং চার্জ পরিশোধ করতে হবে। আমদানিকারকগণ তাদের নিজস্ব গ্রাহকের নিকট সরবরাহতব্য রিগ্যাসিফাইড এলএনজি’র মূল্য উভয়পক্ষ (ক্রেতা ও বিক্রেতা) আলোচনার মাধ্যমে নির্ধারণ করতে পারবেন এবং এ বিষয়ে বৃহৎ ক্রেতাগণের সাথে স্বাধীনভাবে চুক্তি করতে পারবেন। আমদানিকারকগণ কর্তৃক নিজস্ব প্রতিষ্ঠানে ব্যবহার ও তাদের গ্রাহকদের প্রতিষ্ঠানে সরবরাহের পর রিগ্যাসিফাইড এলএনজি’র উদ্বৃতাংশ (যদি থাকে) পেট্রোবাংলার চাহিদা ও প্রয়োজন থাকলে পেট্রোবাংলার স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী একটি নির্দিষ্ট মেয়াদে পেট্রোবাংলার নিকট বিক্রয় করতে পারবে। পেট্রোবাংলার স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী এলএনজি আমদানি এবং আন্তর্জাতিক মানদন্ড অনুযায়ী আনলোডিং, স্টোরেজ, রিগ্যাসিফিকেশন ও সরবরাহ না করলে অথবা পরিদর্শনের সময় ত্রুটি পাওয়া গেলে অথবা সরকার/পরিদর্শকগণের বিভিন্ন সময়ে প্রদত্ত সুপারিশ বাস্তবায়ন না করলে এলএনজি আমদানির অনুমতি বা অনাপত্তিপত্র সাময়িক বা স্থায়ীভাবে বাতিল করার অধিকার সংরক্ষণ করবে সরকার। এ নীতিমালায় প্রযোজ্য সকল ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত কোডস, স্ট্যান্ডার্স, আইনসমূহ এবং বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট আইন ও অন্যান্য নিয়মনীতি অনুসরণ করতে হবে।
ক্যাটাগরি: গ্যাস
তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে যুক্ত হচ্ছে জিএসবি
জানুয়ারি ১০, ২০১৯ বৃহস্পতিবার ০৫:১৬ পিএম - স্টাফ করেসপনডেন্ট, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
দেশের স্থলভাগে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান ও জরিপ কাজে জিওলজিক্যাল সার্ভে অব বাংলাদেশকে (জিএসবি) যুক্ত করার পরিকল্পনা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের আয়োজনে ওই বিভাগে অনুষ্ঠিত ‘চ্যালেঞ্জস অ্যান্ড অপরচুনিটিস ইন হাইড্রোকার্বন এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে এ কথা বলেন তিনি। সচিব বলেন, “তেল-গ্যাস অনুসন্ধান কার্যক্রম চললেও এ বিষয়ে নিবিড়ভাবে গবেষণার কাজ সেভাবে হচ্ছে না। স্থলভাগে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেড(বাপেক্স)কাজ করলেও জিএসবি এর সাথে সম্পৃক্ত নেই। জিএসবিকে আরো সক্রিয় করে তুলতে তেল-গ্যাস অনুসন্ধানের পাশাপাশি দ্বিমাত্রিক ও ত্রিমাত্রিক ভূ-কম্পন জরিপ কাজেও সম্পৃক্ত করা হবে।” দেশের স্থলভাগ ছাড়া সাগরে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান আরো গতিশীল করা হবে বলে জানান তিনি। তিনি আরো বলেন, “জ্বালানি খাতের কার্যক্রমে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকসহ বিশেষজ্ঞদের সম্পৃক্ত করা হবে। শিগগিরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূ-তত্ব বিভাগের সাথে বাপেক্স এবং পেট্রোবাংলা সমঝোতা স্মারক সই করবে। ওই সমঝোতার আলোকে যৌথ পরিকল্পনার মাধ্যমে প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়নে সহযোগিতা নেওয়া হবে।” সেমিনারে মোট তিনটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। এর মধ্যে ‘ইজ বাংলাদেশ রানিং আউট অফ হাইড্রোকার্বন রিসোর্সেস’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূ-তত্ত্ব বিভাগের সুপারনিউমারারি অধ্যাপক বদরুল ইমাম। বাপেক্সের সাবেক কনসালটেন্ট এক্সপ্লোরেশন জিওলোজিস্ট এম মনোয়ার আহমেদ ‘প্রসেপেক্ট জেনারেশন অ্যান্ড ইভালুয়েশন প্রসেস’ শীর্ষক এবং বিজিএফসিএল এর সাবেক কনসালটেন্ট জিওলোজিস্ট আবিদ লোদি ও পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার পুলক খিসা যৌথভাবে ‘রোল অফ থ্রিডি রিজার্ভার মডেলিং ইন ফিল্ড ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। বদরুল ইমাম তার প্রবন্ধে বলেন, “১৯৬০ সালের দিকে যেভাবে গ্যাস আবিস্কারের সফলতা ছিলো তার ধারাবাহিকতায় পরবর্তীতে সেভাবে ততটা আগ্রহ নিয়ে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান করা হয়নি। এখনো পর্যন্ত অনেক স্ট্রাকচার রয়েছে যেখানে তেল-গ্যাস পাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে।” কিন্তু সেসব জায়গায় খনন কাজ করা হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেন তিনি। তিনি আরো বলেন, “কানাডাতে ভার্টিক্যালি কূপ খনন না করে হরাইজেনটালি করা হয়। অথচ বাংলাদেশ শুধু ভার্টিক্যালি কূপ খনন করা হচ্ছে। যদি হরাইজেনটালি কূপ খনন করা হয় তবে সাকসেস রেট হয়তো আরো বাড়বে।” সেমিনার পরিচালনা করেন ভূ-তত্ত্ব বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী মতিন উদ্দিন আহমেদ। সেমিনারে হাইড্রোকার্বন ইউনিটের মহাপরিচালক মো. হারুন-অর-রশীদ খান, বাপেক্স এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর মো. আব্দুল হান্নানসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, আন্তর্জাতিক তেল কোম্পানীর প্রতিনিধি ও শিক্ষার্থীরা অংশ গ্রহণ করেন।
ক্যাটাগরি: গ্যাস
সামিটের এলএনজি টার্মিনাল চালু হচ্ছে মার্চে
জানুয়ারি ০৯, ২০১৯ বুধবার ০৭:১২ পিএম - স্টাফ করেসপনডেন্ট, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
দেশে প্রথমবারের মতো বেসরকারি খাতে ভাসমান তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) টার্মিনাল বাণিজ্যিকভাবে আগামী মার্চে চালু হচ্ছে। দৈনিক ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহের সক্ষমতা থাকলেও সঞ্চালন পাইপলাইনের অভাবে এই টার্মিনাল থেকে প্রথম দফায় ২৫০ মিলিয়ন ঘনফুটের মতো গ্যাস সরবরাহ করা যাবে বলে জানিয়েছেন পেট্রোবাংলার একজন কর্মকর্তা। দেশে গ্যাসের বর্ধিত চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে কক্সবাজারের মহেশখালীতে ভাসমান এ টার্মিনাল নির্মাণ করছে সামিট গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান সামিট এলএনজি টার্মিনাল কোম্পানী (প্রাইভেট) লিমিটেড। প্রথম এলএনজি টার্মিনাল থেকে জাতীয় গ্রীডে গ্যাস সরবরাহ শুরু হওয়ার ৬ মাস পর সামিটের টার্মিনালটি চালু হতে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে সামিট এলএনজি টার্মিনাল কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ এন এম তারীকুর রশীদ এনার্জিনিউজবিডি ডটকমকে বলেন, “অফসোর তথা সাগরে কাজ সবসময় বুঁকিপূর্ণ, সম্পূর্ণরূপে শেষ না হওয়া পর্যন্ত নিশ্চিত হয়ে কিছু বলা যায় না, তদুপরি আশা করছি আগামী মার্চে বাণিজ্যিকভাবে কার্যক্রম শুরু করতে পারবো।” ২০১৭ সালের ২০ এপ্রিল এই টার্মিনাল নির্মাণ এবং এর ব্যবহারে সামিট গ্রুপের সাথে পৃথকভাবে দুটি চুক্তিতে সই করে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ এবং পেট্রোবাংলা । চুক্তির আওতায় সামিট- সমুদ্রের তলদেশে নয় কিলোমিটার গ্যাস পাইপলাইনসহ দেশের দ্বিতীয় ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল এর নির্মাণ, মালিকানা, পরিচালনা ও হস্তান্তর করবে। টার্মিনালটি ১৫ বছর ধরে পরিচালনার পর পেট্রোবাংলার কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করবে সামিট। প্রকল্পে আমদানিকৃত এলএনজি ভাসমান সংরক্ষণাগারে সংরক্ষণ ও পুনরায় গ্যাসে রূপান্তর করে তা পেট্রোবাংলার অঙ্গপ্রতিষ্ঠান গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেডের (জিটিসিএল) কাছে সরবরাহ করবে সামিট। এজন্য পেট্রোবাংলাকে প্রতি মিলিয়ন বিটিইউ গ্যাসের বিনিময়ে ৪৫ সেন্ট (যা বাংলাদেশী মুদ্রায় ৩৭ টাকার মতো) সামিটকে পরিশোধ করতে হবে। আর ওই গ্যাস জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করবে জিটিসিএল। টার্মিনালে এলএনজি রিগ্যাসিফিকেশনের বার্ষিক লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ দশমিক ৫ মিলিয়ন টন(এমপিটিএ)। প্রকল্পটির প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৫০ কোটি ডলার। নির্মাণাধীন এই টার্মিনালের ২৫ শতাংশ মালিকানা ইতোমধ্যে কিনে নিয়েছে জাপানভিত্তিক বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান মিত্সুবিশি করপোরেশন। ২০১৭ সালের শেষদিকে টার্মিনালটির নির্মাণকাজ শুরু হয়। এর আগে টার্মিনালটি নির্মাণের জন্য মেরিন ঠিকাদারি কনসর্টিয়াম প্রতিষ্ঠান জিওসান এসএএস এবং ম্যাকগ্রেগরের সাথে ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের টার্নকি চুক্তি সই করে সামিট। ওই চুক্তির আওতায় প্রতিষ্ঠান দুটি কক্সবাজারের মহেশখালিতে সামিট এলএনজি টার্মিনালের ভাসমান এলএনজি স্টোরেজ  এবং পুনরায় গ্যাসে রুপান্তরকরণ টার্মিনালের ডিজাইন, ইঞ্জিনিয়ারিং, প্রকিউরমেন্ট, ফেব্রিকেশন, ইনস্টলেশন এবং স্থায়ী অবকাঠামোর টেস্টিং এর কাজ করছে।
ক্যাটাগরি: গ্যাস
বাখরাবাদ গ্যাস কোম্পানীর ২১৭ কোটি টাকা মুনাফা
নভেম্বর ২৮, ২০১৮ বুধবার ১২:০০ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেডের (বিজিডিসিএল) ৩৮তম বার্ষিক সাধারণ সভা সম্প্রতি রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) ও বিজিডিসিএলের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান পারভীন আকতার। সভায় শেয়ারহোল্ডারগণকে অবহিত করা হয় যে, আলোচ্য অর্থ-বছরে ৩,৫৭১.৫১ মিলিয়ন ঘনমিটার গ্যাস বিক্রয়ের বিপরীতে বিজিডিসিএল-এর অন্যান্য পরিচালন আয়সহ মোট রাজস্ব আয় হয়েছে ২,২০৭.৩০ কোটি টাকা আলোচ্য অর্থ-বছরে কোম্পানী করপূর্ব মুনাফা অর্জন করেছে ২১৭.৮৬ কোটি টাকা এবং ডিএসএল, সিডিভ্যাট, আয়কর ও লংভ্যাশ বাবদ মোট ১৬৪.৩৪ কোটি টাকা সরকারি কোষাগারে জমা প্রদান করেছে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।
ক্যাটাগরি: গ্যাস
‘গ্যাস সংকট কাটতে আরো এক সপ্তাহ লাগবে’
নভেম্বর ০৮, ২০১৮ বৃহস্পতিবার ০৫:০৫ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) সরবরাহে সমুদ্রের তলদেশে সাব-সি পাইপলাইনের সমস্যা মেরামত করতে আরো এক সপ্তাহ লাগবে বলে জানিয়েছেন রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানি লিমিটেড (আরপিজিসিএল) এর একজন কর্মকর্তা। মহেশখালীর ভাসমান টার্মিনাল থেকে আমদানিকৃত এলএনজি সরবরাহ শুরুর দুই মাসের মধ্যে পাইপলাইনের সংযোগস্থলের হাইড্রোলিক ভাল্ব এ সমস্যা দেখা দেওয়ায় গ্যাস সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। চট্টগ্রামে গ্যাস বিতরণকারী রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (কেজিডিসিএল) এর গ্রাহকদের গ্যাস সরবরাহ কমিয়ে দিয়েছে। আবার এলএনজি সরবরাহ বন্ধ থাকায় চাপ পড়ছে জাতীয় গ্যাস সঞ্চালন গ্রিডের ওপর। ফলে চট্টগ্রামের পাশাপাশি ঢাকাসহ অন্যান্য স্থানে আবাসিক, শিল্প, বিদ্যুৎ, সিএনজি ও বাণিজ্যিক খাতে চরম গ্যাস সংকট দেখা দিয়েছে।   গত ১৮ আগস্ট কক্সবাজারের মহেশখালীতে যুক্তরাষ্ট্রের এক্সিলারেট এনার্জির নির্মিত দেশের প্রথম ভাসমান টার্মিনাল থেকে এলএনজি সরবরাহ শুরু হয় । দৈনিক ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করার কথা থাকলেও আনোয়ারা থেকে ফৌজদারহাট পর্যন্ত পাইপলাইনের সমস্যার কারণে ৩০০ মিলিয়ন ঘনফুট করে সরবরাহ করা হতো। নতুন করে সাগরের নিচে পাইপলাইনে সমস্যার কারণে গত ৩ নভেম্বর রাত থেকে তাও বন্ধ হয়ে যায়। এলএনজি টার্মিনাল দেখভালের দায়িত্বে থাকা আরপিজিসিএল এর অন্য এক কর্মকর্তা বলেন, সমুদ্রের তলদেশে প্রায় ৪০ মিটার নিচে গ্যাস সরবরাহ পাইপলাইনের সংযোগস্থলের অকেজো হয়ে পড়া ভাল্ব মেরামতের বিষয়টি জটিল। ইতোমধ্যে এক্সিলারেট এনার্জি মেরামতের কাজ শুরু করেছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই কাজটি শেষ করা সম্ভব হবে। আরপিজিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী মো. কামরুজ্জামান বলেন, কয়েকদিনের মধ্যে এলএনজি সরবরাহ আগের অবস্থায় ফিরে আসবে। এদিকে, রাজধানী ঢাকার অধিকাংশ এলাকায় গ্যাস সরবরাহ না থাকায় বাসাবাড়িতে বিকল্প ব্যবস্থায় এলপিজি, বৈদ্যুতিক হিটার আবার কোথাও কোথাও জ্বালানি কাঠ দিয়ে রান্না করা হচ্ছে।  
ক্যাটাগরি: গ্যাস
‘গ্যাসের দাম বাড়ছে না, ভর্তুকি দেবে সরকার’
অক্টোবর ১৬, ২০১৮ মঙ্গলবার ০৮:১০ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
চলতি অর্থবছরে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানির জন্য সরকার ৩ হাজার ১০০ কোটি টাকা ভর্তুকি দেবে সেজন্য গ্যাসের দাম না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকায় কারওয়ান বাজারে বিইআরসির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটি এই সিদ্ধান্তের কথা জানায়।  গ্যাসের দাম না বাড়ানো প্রসঙ্গে বিইআরসি চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম বলেন, “গ্যাসের উৎপাদন, এলএনজি আমদানি, সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যয় বৃদ্ধি পাওয়া সত্ত্বেও সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে ভোক্তা পর্যায়ে বিদ্যমান মূল্যহার পরিবর্তন না করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।” তিনি আরো বলেন, আমার ইলেকশন কমিশন না। গ্যাসের মূল্যহার নির্ধারণের ক্ষেত্রে নির্বাচনের বিষয়টি প্রাসঙ্গিক নয়। তিনি বলেন, বর্তমানে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের গড় ভারিত মূল্য সাত টাকা ১৯ পয়সা। এটা ১ টাকা ৪৬ পয়সা বাড়ানোর প্রয়োজন রয়েছে। তবে চলতি অর্থবছরে এলএনজি আমদানিতে ৩ হাজার ১০০ কোটি টাকা ভর্তুকি প্রয়োজন হবে। যা সরকারি তহবিল থেকে সরবরাহ করা হবে বলে জানান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন সদস্য(পেট্রোলিয়াম)রহমান মুরশেদ, সদস্য(প্রশাসন)মাহমুদুল হক ভূঁইয়া, সদস্য(গ্যাস)মোঃ আবদুল আজিজ খান এবং সদস্য(বিদ্যুৎ)মোঃ মিজানুর রহমান। মূলত এলএনজি আমদানির কারণে গ্যাস বিতরণ ও সঞ্চালন কোম্পানীগুলো ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের দাম বাড়াতে বিইআরসির কাছে আবেদন করে। চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম বলেন, গত ১৮ মার্চ গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেড (জিটিসিএল) কমিশনে সঞ্চালন ট্যারিফ বাড়ানোর আবেদন করে। এরপর ২০ মার্চ গ্যাস বিতরণ কোম্পানী তিতাস, বাখরাবাদ, পশ্চিমাঞ্চল ও কর্ণফুলী এবং ২১ মার্চ জালালাবাদ ও সুন্দরবন কোম্পানি পৃথকভাবে তাদের বিতরণ চার্জসহ ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের মূল্য বাড়ানোর আবেদন করে। কমিশন আবেদনগুলো বিবেচনা করে গত জুন মাসে গণশুনানি করে। গ্যাসের উৎপাদন, এলএনজি আমদানি, সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যয় বেড়ে যাওয়ার পরও সার্বিক দিক বিবেচনা করে বিইআরসি রেগুলেটরি আইন ২০০৩ এর ধারা ২২ (খ) এবং ৩৪ এ দেওয়া ক্ষমতা বলে কমিশন ভোক্তাপর্যায়ে বিদ্যমান মূল্যহার পরিবর্তন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানান তিনি। এদিকে বিইআরসির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের জারি করা ২৬ সেপ্টেম্বরের এসআরও এর মাধ্যমে ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে এলএনজি আমাদনির শুল্ক প্রত্যাহার করা হয়েছে। এছাড়া ওই বিভাগের জারি করা ৩ অক্টোবরের আলাদা দুটি এসআরও এর মধ্যেমে ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে প্রাকৃতিক গ্যাসের উৎপাদন পর্যায়ে সম্পূরক শুল্ক এবং আমদানি-পর্যায়ে অগ্রিম কর ও অগ্রিম মূসক প্রত্যাহার করা হয়েছে। এরই প্রেক্ষাপটে বিদ্যমান ‘গ্যাস মূল্যহার বণ্টন’ বিবরণী সংশোধন করে  আদেশ জারি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। কমিশন নিরাপত্তা জামানত, বিল পরিশোধ, বিল পৌঁছানো বিষয়ে আগের নিয়মের পরিবর্তন করেছে। বিতরণ সিস্টেম লস নিরূপণের প্রচলিত পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। এছাড়া গ্যাস সঞ্চালন এবং বিতরণ ব্যবস্থায় আরও কিছু সংস্কার বাস্তবায়নের আদেশ দেওয়া হয়েছে। এই আদেশ ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হবে বলে ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়। এছাড়া কমিশনের এক প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, ক্যাপটিভ পাওয়ার, শিল্প, চা-বাগান, বাণিজ্যিক ও গৃহস্থালী খাতে গ্রাহকশ্রেণীর ক্ষেত্রে নিরাপত্তা জামানত তিন মাসের পরিবর্তে দুই মাস আর ছয় মাসের পরিবর্তে চার মাস বিলের সবপরিমাণ অর্থ নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রিপেইড মিটার গ্রাহককে আর নিরাপত্তা জামানত দিতে হবে না। গ্রাহকের বিলের কাগজে গ্যাসের মূল্যহার ঘনমিটারে ঘণ্টা প্রতি ও মাসিক অনুমোদিত লোড, চালনা পদ্ধতি, (দৈনিক কর্মঘণ্টা ও মাসিক কার্য দিবস), ডাইভারসিটি ফ্যাক্টর ও সরবরাহ চাপ (পিএসআইজি) উল্লেখ থাকতে হবে। সব শ্রেণীর গ্যাস ব্যবহারকারী সরবরাহ মাসের পরবর্তী মাসের শেষ তারিখ পর্যন্ত বিলম্ব মাশুল ছাড়া বিল পরিশোধ করতে পারবেন। এই সময়সীমার কমপক্ষে ১৫ দিন আগে গ্রাহকের কাছে বিতরণকারী কোম্পানিকে বিল পৌঁছাতে হবে। ক্যাপটিভ পাওয়ার ও শিল্প গ্রাহকের কো-জেনারেশন স্কিম অব্যাহতভাবে তিন মাস চালু থাকলে পরের তিন মাসের মধ্যে ওই গ্রাহকের তিন মাসের মোট বিলের (সারচার্জ বা বিলম্ব মাশুল ছাড়া) ওপর শূন্য দশমিক ২৫ শতাংশ হারে ছাড় (রিবেট) প্রদান করা হবে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে।      
ক্যাটাগরি: গ্যাস
এলএনজি আমদানিতে সব ধরণের আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার
অক্টোবর ০২, ২০১৮ মঙ্গলবার ০৮:২৭ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানির ক্ষেত্রে সব ধরণের আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার করে নিয়েছে সরকার। গত ৩০ সেপ্টেম্বর অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানিয়ে বলা হয়, ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে এই প্রজ্ঞাপন কার্যকর হয়েছে। এই প্রজ্ঞাপন জারির ফলে এলএনজি আমদানির ব্যয় কমে আসবে বলে পেট্রোবাংলার একজন কর্মকর্তা জানান। এছাড়া সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহারের ব্যাপারে আগামী এক-দুই দিনের মধ্যে আরেকটি প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে। তবে আপাতত ভ্যাট এবং অগ্রিম আয়কর (এআইটি) প্রত্যাহার হচ্ছে না। ওই প্রজ্ঞাপনটি জারি হলেই বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরী কমিশন (বিইআরসি) চলতি সপ্তাহেই গ্যাসের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দিতে পারে। উচ্চ মূল্যে এলএনজি আমদানির জন্য গৃহস্থালি ও বাণিজ্যিক বাদে অন্যান্য খাতে এবার গ্যাসের দাম বাড়ছে বলে জানিয়েছেন বিইআরসির একজন সদস্য।          
ক্যাটাগরি: গ্যাস
চলতি সপ্তাহে গ্যাসের দাম বাড়ানোর ঘোষণা আসছে
সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৮ রবিবার ০৭:৪০ এএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
চলতি সপ্তাহে গ্যাসের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরী কমিশন (বিইআরসি) এর এক কর্মকর্তা। বর্ধিত এ গ্যাসের দাম আগামী মাস থেকে কার্যকর হবে বলে জানান তিনি। উচ্চ মূল্যে এলএনজি আমদানির জন্য গৃহস্থালি খাত বাদে অন্যান্য খাতে গ্যাসের এ মূল্য বাড়ানো হচ্ছে। সম্প্রতি গ্যাস বিতরণ ও সঞ্চালনকারী কোম্পানীগুলো এলএনজি আমদানির কারণ দেখিয়ে গ্যাসের মূল্য বাড়ানোর জন্য বিইআরসির কাছে আবেদন করে। ওই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গণশুনানী শেষে বিইআরসি এ সিদ্ধান্ত দিতে যাচ্ছে। বর্তমানে দৈনিক ৩০০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হচ্ছে এবং পরবর্তীতে তা বেড়ে ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট হবে বলে কর্মকর্তারা জানান।  
ক্যাটাগরি: গ্যাস
দৈনিক ৩০০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি পাচ্ছে চট্টগ্রামবাসী
সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮ মঙ্গলবার ১১:১১ এএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
চট্টগ্রাম অঞ্চলে তরলায়িত প্রাকৃতিক গ্যাস বা এলএনজি দৈনিক ৩০০ মিলিয়ন ঘনফুট সরবরাহ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানী লিমিটেড (আরপিজিসিএল) এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ কামরুজ্জামান। তিনি বলেন, এত দিন ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল থেকে দৈনিক ১০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছিল। সোমবার থেকে তা বাড়িয়ে ৩০০ মিলিয়ন ঘনফুট করা হয়েছে। এতে চট্টগ্রাম অঞ্চলে গ্যাসের অভাব দূর হবে। চট্টগ্রামে গ্যাস সরবরাহকারী কর্ণফুলী গ্যাস বিতরণ কোম্পানী লিমিটেড (কেজিডিসিএল) এর এক কর্মকর্তা বলেন, এলএনজি আমদানির সুফল পেতে শুরু করেছে চট্টগ্রামবাসী। গ্যাসের অভাবে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র ও সার কারখানাগুলো আবারও সচল হচ্ছে। এছাড়া চট্টগ্রাম নগরসহ আশপাশের এলাকায় গ্যাসের প্রবাহ ও চাপ বেড়েছে বলে জানান তিনি। এলএনজি আমদানির দায়িত্বে থাকা আরপিজিসিএল এক কর্মকর্তারা জানান, কাতার থেকে একটি মাদার ভেসেল (বড় জাহাজ) এক লাখ ৩৩ হাজার ঘনমিটার এলএনজি নিয়ে গত রোববার মহেশখালী দ্বীপের মাতারবাড়ী উপকূলে ভিড়েছে। আরো দুটি জাহাজ কাতার থেকে এলএনজি নিয়ে রওনা দিয়েছে। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা জানান, গ্যাসের অভাবে শিকলবাহা ২২৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্রে উৎপাদন বন্ধ ছিল। এলএনজি সরবরাহ শুরু হওয়ার পর ওই কেন্দ্রে ৩৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস দেয় কেজিডিসিএল। এর পর থেকে ওই কেন্দ্রে আবার বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হয়। এছাড়া দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা রাউজান তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রেও আবার গ্যাস সরবরাহ শুরু করেছে কেজিডিসিএল। ওই বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্যাস দেওয়া হচ্ছে ৪৫ মিলিয়ন ঘনফুট। এলএনজি সরবরাহ পাওয়ায় কর্ণফুলী ফার্টিলাইজার কম্পানি লিমিটেড বা কাফকোতে আবারও সার উৎপাদন শুরু হয়েছে। কাফকোতে গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে ৫০ মিলিয়ন ঘনফুট। গত ১৮ আগস্ট চট্টগ্রামে প্রথমবারের মতো এলএনজি সরবরাহ শুরু হওয়ার পর থেকে আবাসিক গ্রাহকদের গ্যাসের চাপও বেড়েছে কয়েক গুণ। তবে বর্তমানে চট্টগ্রামে গ্যাসের চাহিদা প্রায় ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট। গ্যাসের জাতীয় সঞ্চালন লাইন থেকে কেজিডিসিএল গ্যাস সরবরাহ পাচ্ছে ১৫০ মিলিয়ন ঘনফুট। আর এলএনজি টার্মিনাল থেকে গ্যাস আসছে ৩০০ মিলিয়ন ঘনফুট। সে হিসেবে চট্টগ্রামে গ্যাসের সংকট কেটে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। দেশে গ্যাস সম্পদ দেখভালের দায়িত্বে থাকা পেট্রোবাংলার এক কর্মকর্তা জানান, চট্টগ্রামে এত দিন জাতীয় গ্রিড থেকে গ্যাস সরবরাহ করা হতো। এলএনজি আসার পর জাতীয় গ্রিড থেকে গ্যাস সরবরাহ কমিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং ধীরে ধীরে আর কেজিডিসিএল জাতীয় গ্রিড থেকে প্রাকৃতিক গ্যাস পাবে না। ওই গ্যাস দেশের অন্যান্য এলাকায় দেওয়া হবে। কেজিডিসিএল এলএনজিনির্ভর হওয়ায় ঢাকায় প্রাকৃতিক গ্যাসের চাপ বাড়বে বলে কর্মকর্তারা জানান।    
ক্যাটাগরি: গ্যাস
‘সাগরে তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে শিগগিরই বিডিং রাউন্ড ঘোষণা হচ্ছে’
আগস্ট ০৯, ২০১৮ বৃহস্পতিবার ০৬:৩৫ পিএম - স্টাফ করেসপনডেন্ট, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
বঙ্গোপসাগরে তেল-গ্যাস অনুসন্ধানের জন্য শিগগিরই নতুন প্রডাকশন শেয়ারিং কন্ট্রাক্ট বা পিএসসি করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী। বৃহস্পতিবার পেট্রোবাংলার ড. হাবিবুর রহমান অডিটরিয়াম এ জাতীয় জ্বালানি নিরাপত্তা দিবস-২০১৮ উপলক্ষে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত সেমিনারে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি। উপদেষ্টা বলেন, ইতোমধ্যে নতুন বিডিং রাউন্ড ঘোষণার জন্য খসড়া পিএসসি প্রণয়ন করা হয়েছে। এর আলোকেই অগভীর ও গভীর সমুদ্রে তেল-গ্যাস অনুসন্ধানের জন্য চুক্তি করা হবে। তবে এবারের বিডিং রাউন্ডে স্থলভাগে তথা অনশোরে কোনো পিএসসি হবে না।   তিনি বলেন, মূল্যবান গ্যাসসহ অন্যান্য জ্বালানি ব্যবহারের ক্ষেত্রে অপচয় রোধ করে যথাযথ ব্যবহার ও উদ্ভাবনী ক্ষমতা প্রয়োগের মাধ্যমে জ্বালানি সাশ্রয়ের ওপর সর্বাধিক গুরুত্ব দিতে হবে। জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব আবু হেনা মো: রহমাতুল মুনিম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে আরো বক্তব্য দেন বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি) এর চেয়ারম্যান মো: আকরাম আল হোসেন, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান আবুল মনসুর মোঃ ফয়েজউল্লাহ। সেমিনারের শুরুতে ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তাঁর পরিবারের নিহত সদস্যদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। সেমিনারে ‘অয়েল অ্যান্ড গ্যাস এক্সপ্লোরেশন অপরচুনিটিস ইন দি অফশোর এরিয়াস অব বাংলাদেশ আন্ডার প্রডাকশন শেয়ারিং কন্ট্রাক্ট (পিএসসি)’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পেট্রোবাংলার মহাব্যবস্থাপক (কন্ট্রাক্ট) শাহনেওয়াজ পারভেজ এবং ‘পেট্রোলিয়াম পাইপলাইন নেটওয়ার্ক ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পদ্মা অয়েল কোম্পানী লিমিটেড এর মহাব্যবস্থাপক (প্রকল্প) মো: আমিনুল হক। সেমিনারে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়, পেট্রোবাংলা ও এর অধীনস্থ কোম্পানিসমূহের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।  প্রসঙ্গত, স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর জাতীয় অগ্রগতির লক্ষ্যে যে সকল দূরদর্শী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিলেন তন্মধ্যে জাতীয় জ্বালানির নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিতকরণ ছিল অন্যতম। দেশের অর্থনীতির ভিতকে মজবুত করে সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ৯ আগস্ট তৎকালীন ব্রিটিশ তেল কোম্পানি শেল অয়েল এর নিকট থেকে তিতাস, হবিগঞ্জ, রশিদপুর, কৈলাশটিলা ও বাখরাবাদ-এ ৫টি গ্যাসক্ষেত্র নামমাত্র ৪.৫ মিলিয়ন পাউন্ড স্টার্লিং মূল্যে ক্রয় করে রাষ্ট্রীয় মালিকানায় হস্তান্তরের কার্যক্রম সম্পন্ন করেন। এ গ্যাস ক্ষেত্রসমূহকে রাষ্ট্রীয় মালিকানায় নেয়ার পর থেকে অদ্যাবধি দেশের অর্থনৈতিক বিকাশে এবং জ্বালানি নিরাপত্তার ক্ষেত্রে অতুলনীয় ভূমিকা রেখে চলছে। জাতির পিতার উন্নয়ন ভাবনার পথ অনুরসরণ করে তাঁরই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার ২০১০ সাল থেকে এ দিবসটিকে ‘জাতীয় জ্বালানি নিরাপত্তা দিবস’ হিসেবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। এ দিবসটি উদযাপনের মাধ্যমে জ্বালানি নিরাপত্তায় বঙ্গবন্ধুর অবদানের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের পাশাপাশি দেশের উন্নয়নে জ্বালানি খাতের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন সংক্রান্ত কার্যক্রমের প্রচারণা এবং জ্বালানির সাশ্রয়ী ব্যবহারের গুরুত্ব তুলে ধরে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা সম্ভব হচ্ছে।    
ক্যাটাগরি: গ্যাস
হবিগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্র থেকে আরো ১৬ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ শুরু
আগস্ট ০৭, ২০১৮ মঙ্গলবার ১২:১৪ পিএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
দেশের জাতীয় গ্যাস গ্রিডে হবিগঞ্জের একটি কূপ থেকে দৈনিক ১৬ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস যুক্ত হয়েছে। বাংলাদেশ গ্যাস ফিল্ডস কোম্পানী লিমিটেডের(বিজিএফসিএল)এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়ে বলা হয়, সোমবার থেকে দৈনিক ১৬ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস অতিরিক্ত উৎপাদন শুরু হয়েছে। বিজিএফসিএল এর আওতাধীন হবিগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্রের ১ নম্বর কূপ ওয়ার্কওভার করে দৈনিক এই গ্যাস উত্তোলন শুরু হয়েছে। বর্তমানে হবিগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্রের সাতটি কূপ থেকে দৈনিক ২২৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যোগ হচ্ছে। দেশে দৈনিক ৩৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের চাহিদা থাকলেও এর বিপরীতে ২৭৫০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের সরবরাহ করা হয়।
ক্যাটাগরি: গ্যাস
এলএনজি সরবরাহে ১ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করতে চায় ভারতের পেট্রোনেট
জুলাই ২৯, ২০১৮ রবিবার ১১:৩১ এএম - নিউজ ডেস্ক, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানি ও সরবরাহে টার্মিনাল নির্মাণে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে চায় এ খাতে ভারতের বৃহত্তম প্রতিষ্ঠান পেট্রোনেট। এ জন্য ১ বিলিয়ন বা ১০০ কোটি ডলারের বিনিয়োগ প্রস্তাব দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। অনুমোদন পাওয়ার পর ৪২ মাসের মধ্যে স্থলভাগে এলএনজি সরবরাহের কাজ শেষ করতে চায় তারা। কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় ২৬ কিলোমিটার পাইপলাইনে বছরে ৭৫ কোটি টন আমদানি করা এলএনজি গ্রহণ এবং সরবরাহ লাইনে ছাড়ার পরিকল্পনায় গত বছর পেট্রোবাংলার সঙ্গে একটি সমঝোতা চুক্তি (এমওইউ) হয় পেট্রোনেটের। এখন প্রকল্পের বিস্তারিত উল্লেখ করে অনুমোদনের জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে আবেদন করা হয়েছে। পেট্রোনেটের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং প্রধান নির্বাহী প্রভাত সিং পিটিআইকে জানান, সরকার তাদের প্রস্তাব গ্রহণ করলে পেট্রোবাংলা এবং পেট্রোনেটের মধ্যে আনুষ্ঠানিক চুক্তি হবে। কুতুবদিয়ার এ স্থানটিকে এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনের জন্য আদর্শ হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি। বিওও অর্থাৎ নির্মাণ, মালিকানা ও পরিচালনার ভিত্তিতে নির্মাণ করা হবে প্রকল্পটি। সূত্র: পিটিআই  
ক্যাটাগরি: গ্যাস
৪ জুলাই থেকে স্বল্প পরিসরে জাতীয় গ্রিডে এলএনজি সঞ্চালন শুরু হচ্ছে
জুন ২৫, ২০১৮ সোমবার ০৮:২২ পিএম - স্টাফ করেসপনডেন্ট, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
আগামী ৪ জুলাই থেকে স্বল্প পরিসরে জাতীয় গ্রিডে এলএনজি সঞ্চালন শুরু হবে বলে জানিয়েছেন রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানী লিমিটেড (আরপিজিসিএল)এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো: কামরুজ্জামান। সোমবার ঢাকার কারওয়ান বাজারে টিসিবি ভবনে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানির পরবর্তীতে প্রাকৃতিক গ্যাসের মূল্য নির্ধারণ বিষয়ক এক গণশুনানীতে এ কথা জানান তিনি। ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ(ক্যাব)এর অনুরোধে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরী কমিশন (বিইআরসি)এ শুনানীর আয়োজন করে। বিইআরসি এর চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম, সদস্য(পেট্রোলিয়াম)রহমান মুরশেদ, সদস্য (প্রশাসন) মাহমুদুল হক ভূঁইয়া, সদস্য (গ্যাস) মোঃ আবদুল আজিজ খান এবং সদস্য (বিদ্যুৎ) মোঃ মিজানুর রহমান শুনানী গ্রহণ করেন। শুনানীতে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান পেট্রোবাংলা ও আরপিজিসিএল এর প্রতিনিধি, ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা, বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকসহ গণমাধ্যমের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। এলএনজি আমদানি ও তদারকির দায়িত্বে থাকা আরপিজিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, গ্যাস সঙ্কট নিরসণে আগামী ৪ জুলাই এলএনজি গ্রিডে সঞ্চালনের জন্য কমিশনিং করা হবে। প্রাথমিকভাবে দৈনিক ৩৫০ মিলিয়ন ঘনফুট রি-গ্যাসিফিকেশন এলএনজি জাতীয় গ্রিডে যোগ হবে। পর্যায়ক্রমে তা দৈনিক ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুটে উন্নীত হবে। তবে এই এলএনজি জাতীয় গ্রিডে যোগ করার পর আবাসিক ও বাণিজ্যিক গ্রাহক বাদে অন্যান্য শ্রেনীর গ্রাহকদের কাছ থেকে বাড়তি দাম নিতে চায় পেট্রোবাংলা এবং এর অধীনস্থ গ্যাস সরবরাহকারী কোম্পানীগুলো। এজন্য গত ১১ জুন থেকে ২১ জুন পর্যন্ত গ্যাস সঞ্চালন ও বিতরণ কোম্পানীগুলোর দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের উপর শুনানী গ্রহণ করে বিইআরসি। তবে এসব প্রস্তাবের বিরোধীতা করে আসছে ক্যাব। সোমবারের শুনানীতে এলএনজি আমদানি এবং রি-গ্যাসিফিকেশন কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য প্রতি ঘনমিটার এলএনজি এর জন্য ৪০ পয়সা সার্ভিস চার্জের প্রস্তাব করে আরপিজিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরুজ্জামান। কিন্তু ক্যাবের প্রতিনিধি তা নাকচ করেন দেন। ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা অ্ধ্যাপক শামসুল আলম বলেন, এলএনজি জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে। গ্রিডের গ্যাস সরবরাহের জন্য পেট্রোবাংলাকে গ্রাহকরা সার্ভিস চার্জ দেয় সেই ক্ষেত্রে আরপিজিসিএলের জন্য দ্বিতীয়বার সার্ভিস চার্জ চাওয়া অযৌক্তিক। কারণ একই পণ্যের দুইবার সার্ভিস চার্জ দেওয়া যায় না। বিদেশ থেকে আমদানি করা ব্যয়বহুল এলএনজির প্রথম চালান জাতীয় গ্রিডে যোগ করলেও গ্যাসের দাম অপরিবর্তিত রাখা সম্ভব বলে মনে করেন তিনি। তিনি বলেন, ক্যাবের হিসাবে এলএনজি মিশ্রিত গ্যাসের মূল্যহার ভোক্তাপর্যায়ে ৯ টাকা ০৯ পয়সা। বিদ্যমান মূল্যহার ৭ টাকা ৩৮ পয়সা। ফলে এক টাকা ৭১ পয়সা ঘাটতি বিবেচনায় মোট ৫ হাজার ৪৬৭ কোটি টাকা ঘাটতি দাঁড়াবে। এই ঘাটতি মূল্যহার বৃদ্ধি কিংবা সরকারি ভর্তুকি ছাড়াই এই খাতের অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েই সমন্বয় করা যাবে বলে দাবি করেন ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা।  ক্যাবের হিসাবে তিতাসের প্রস্তাবিত সিস্টেম লস মূল্যহার সমন্বয় না করা হলে ২৫৬.০৭ কোটি টাকা, গ্যাস ডেভেলপমেন্ট ফান্ড (জিডিএফ) রদ করা হলে এক হাজার ৯৮ কোটি টাকা, গ্যাসের সম্পদমূল্য এসডি-ভ্যাট মুক্ত ধরা হলে ৪১৩ কোটি টাকা, জ্বালানি নিরাপত্তা তহবিল (ইএসএফ) এর অর্থ ভর্তুকি হিসাবে বিনিয়োগ করা হলে দুই হাজার ৭৫৭ কোটি টাকা, আইওসি গ্যাস এসডি মুক্ত ধরা হলে ৮১৬ কোটি টাকা, তিতাসের রিটার্ন হার ১৮ শতাংশের পরিবর্তে ১২ শতাংশ ধরা হলে ১৫ কোটি টাকা এবং সরকারের ডেভিডেন্ট থেকে ঘাটতি সমন্বয়ের জন্য ১১০ কেটি টাকা দেওয়া হলে মোট ৫ হাজার ৪৬৭ কোটি টাকা পাওয়া যাবে। এই টাকা দিয়ে ঘাটতি মোকাবেলা করা সম্ভব। আর বিশ্ববাজার থেকে প্রতি হাজার ঘনফুট এলএনজি ৮.৫ ডলার ধরে প্রতিদিন এক হাজার ঘনফুট গ্যাসের আমদানি প্রাক্কলন করেছে পেট্রোবাংলা। সেই হিসাবে প্রতি ঘনফুট গ্যাসের বিক্রয়পূর্ব মূল্য ৩২ টাকা ৩৬ পয়সা ঠিক করেছে। দেশীয় গ্যাসের সঙ্গে এলএনজি মিশ্রনের পর গ্যাসের দাম প্রস্তাব করেছে প্রতি ঘনমিটারে ১২ টাকা ৮৯ পয়সা। তবে ৫০০ এমএমসিএফডি এলএনজি মিশ্রন করলে মিশ্রিত গ্যাসের দাম প্রতি ঘনমিটারে ৯ টাকা ৬৯ পয়সা দাঁড়াবে বলে পেট্রোবাংলার হিসাব। শুনানীতে অংশ নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূ-তত্ত্ব বিভাগের সাবেক অধ্যাপক বদরুল ইমাম বলেন, দেশীয় সম্পদ  তথা গ্যাস অনুসন্ধান অদৃশ্য কারণে ধীরগতিতে চলছে।এখন গ্যাস সঙ্কটকে পুঁজি করে উচ্চমূল্যের এলএনজি আমদানি করা হচ্ছে। বিইআরসি আইন অনুযায়ী এ গণশুনানীর পরিপ্রেক্ষিতে সব পক্ষের বক্তব্য বিশ্লেষণ ও পর্যালোচনা করে আগামী ৯০ কর্মদিবসের মধ্যে সিদ্ধান্ত দেবে। এলএনজি আমদানির জন্য কক্সবাজারের মহেশখালীতে এলএনজি রি-গ্যাসিফিকেশন অর্থাৎ এলএনজি থেকে গ্যাসে রূপান্তরের জন্য একটি টার্মিনাল নির্মাণ করা হয়েছে। ওই টার্মিনালের মাধ্যমে দৈনিক ৫০০ মিলিয়ন বা ৫০ কোটি ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে সরবরাহের কথা রয়েছে।  
ক্যাটাগরি: গ্যাস
‘আগামী ৮ দিনের মধ্যে এলএনজি জাতীয় গ্রিডে যোগ হবে’
জুন ১১, ২০১৮ সোমবার ০৮:১৩ পিএম - স্টাফ করেসপনডেন্ট, এনার্জিনিউজবিডি ডটকম
আগামী আট দিনের মধ্যে আমদানিকৃত এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) জাতীয় গ্রিডে যোগ হবে বলে জানিয়েছেন পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান আবুল মনসুর মো. ফয়জুল্লাহ। সোমবার ঢাকায় কারওয়ানবাজারে টিসিবি ভবনে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরী কমিশনের কাছে গ্যাসের সঞ্চালন ট্যারিফ বাড়ানোর বিষয়ে গনশুনানীর আগে বক্তব্যে একথা বলেন তিনি। তিনি বলেন, এলএনজি আমদানি করে আমরা লাভ করতে চাই না। যা খরচ হবে সেই দাম পেলে আমরা সন্তুষ্ট থাকবো। এজন্য যৌক্তিকভাবে গ্যাসের দাম বাড়ানো যেতে পারে। তবে কি পরিমাণ এলএনজি জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করা হবে তা উল্লেখ করেননি তিনি। এরপর পেট্রোবাংলার মহাব্যবস্থাপক নজরুল ইসলাম তার উপস্থাপনায় আমদানিকৃত এলএনজি জাতীয় গ্যাস গ্রিডে যোগ হলে কেমন প্রভাব পড়বে তা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, আমদানিকৃত এলএনজি এর মূল্য প্রতি হাজার ঘনফুট ৮ দশমিক ৫০ ডলার বিবেচনা করে দেশীয় উৎপাদিত গ্যাসের সাথে মিশ্রণ করা হলে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের বিক্রয়মূল্য দাঁড়াবে ১২ টাকা ৮৯ পয়সা। আর যদি আমদানিকৃত এলএনজি এর মূল্য প্রতি হাজার ঘনফুট ১০ দশমিক ৭৬ ডলার বিবেচনা করে দেশীয় উৎপাদিত গ্যাসের সাথে মিশ্রণ করা হলে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের বিক্রয়মূল্য দাঁড়াবে ১৫ টাকা। উভয়ক্ষেত্রে সাপ্লিমেনটারি ডিউটি অব্যাহতি বিবেচনা করে এলএনজি বিক্রয়মূল্যের হিসাব করা হয়েছে বলে জানান তিনি।  
ক্যাটাগরি: গ্যাস
    সাম্প্রতিক গ্যাস এর খবর
৪ জুলাই থেকে স্বল্প পরিসরে জাতীয় গ্রিডে এলএনজি সঞ্চালন শুরু হচ্ছে
‘আগামী ৮ দিনের মধ্যে এলএনজি জাতীয় গ্রিডে যোগ হবে’
‘এলএনজি সরবরাহে প্রতি ঘনমিটারে ১৮ পয়সা সঞ্চালন চার্জ বৃদ্ধি চায় জিটিসিএল’
‘স্থলভাগে ১০৮টি গ্যাস কূপ খনন করা হবে’
‘গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবে ১১ জুন থেকে গণশুনানী শুরু’
এলএনজি আমদানি করতে ওমান ট্রেডিং এর সঙ্গে চুক্তি সই
এলএনজি’র ব্যবহারে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ প্রতিমন্ত্রীর
‘শিল্পের পর এবার আবাসিকেও গ্যাস সংযোগ দেওয়া হচ্ছে’
‘এলএনজি আমদানির জন্য ২০ বছর মেয়াদী জ্বালানি নিরাপত্তা তহবিল গঠন’
‘ভোলায় আরো কূপ খননের পরামর্শ’
বিজিএফসিএল ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে ৩৯২ কোটি টাকা করপূর্ব মুনাফা অর্জন করেছে
‘ভোলার ভেদুরিয়ায় ৬০০ বিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের মজুদ’
এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণে ১০০ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি সই করেছে সামিট
বাপেক্স ৭০০ বিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের সন্ধান পেয়েছে ভোলায়
এলএনজি আমদানির জন্য সিঙ্গাপুরের গানভর প্রাইভেট লিমিটেডের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করেছে পেট্রোবাংলা
ইন্দোনেশিয়া থেকে এলএনজি কিনবে বাংলাদেশ
‘সরকার গ্যাস উৎপাদন বৃদ্ধি করে জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে’
জ্বালানি খাতে সুষম উন্নয়ন করা হবে: নসরুল
আবাসিকে দ্বিতীয় ধাপে গ্যাসের দাম বৃদ্ধি অবৈধ: হাইকোর্ট রায়
আগামী কয়েক বছরের মধ্যে দৈনিক ৪ হাজার এমএমসিএফ গ্যাস আমদানি করবে সরকার
এলএনজি আমদানির জন্য সুইজারল্যান্ডের এওটি এনার্জির সাথে পেট্রোবাংলার সমঝোতা স্মারক সই
চীনের কনসোর্টিয়ামের কাছে শেভরন করপোরেশন বাংলাদেশে তাদের সব সম্পদ বিক্রি করবে
ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণে সরকারের সাথে চুক্তি করলো সামিট গ্রুপ
পেট্রোবাংলা সাঙ্গু গ্যাসক্ষেত্রের অবকাঠামো বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করবে
বাংলাদেশের গ্যাস খাতে ৬ কোটি ডলার ঋণ দেবে এআইআইবি
‘দুই লাখ আবাসিক গ্রাহকের আঙ্গিনায় প্রি-পেইড গ্যাস মিটার স্থাপনে চুক্তি সই’
গভীর সমুদ্রে তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে চুক্তি সই
‘বাংলাদেশে এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনে আগ্রহ প্রকাশ করেছে জাপানের প্রতিষ্ঠান মারুবেনি’
‘আগামী দুই বছরের মধ্যে শিল্প কারখানায় নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহের আশ্বাস’
    FOLLOW US ON FACEBOOK


Explore the energynewsbd.com
হোম
এনার্জি ওয়ার্ল্ড
মতামত
পরিবেশ
অন্যান্য
এনার্জি বিডি
গ্রীণ এনার্জি
সাক্ষাৎকার
বিজনেস
আর্কাইভ
About Us Contact Us Terms & Conditions Privacy Policy Advertisement Policy